সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:০৭ পূর্বাহ্ন
Bengali Bengali English English

জামালপুরের ইউএনও’র বিরুদ্ধে ঝাড়ু মিছিল

সংবাদদাতার নামঃ
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ২৯ আগস্ট, ২০২১
  • ৫৩৯ জন সংবাদটি পড়ছেন

জামালপুর ॥ জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে ‘বীর নিবাস’ প্রকল্পের ঘর বরাদ্দ বাতিল, ঘুষ দাবি ও মুক্তিযোদ্ধার মেয়েকে লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদে দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আব্দুল্লাহ বিন রশিদ ও পিআইও এনামুল হকের বিরুদ্ধে ঝাড়– মিছিল করেছে ভুক্তভোগী মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যরা। রবিবার সকালে ইউএনও অফিসের সামনে ঝাড়– মিছিল করে ঘর বরাদ্দের দাবি জানান তারা।

অভিযোগে জানা গেছে, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ‘বীর নিবাস’ প্রকল্পে ঘর বরাদ্দের তালিকায় নাম রয়েছে দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের চর কালিকাপুরের মৃত বীর মুক্তিযোদ্ধা সাজু শেখের পরিবারের সদস্যদের। প্রকল্পে নাম থাকায় দেওয়ানগঞ্জের ইউএনও আব্দুল্লাহ বিন রশিদ ও পিআইও এনামুল হক সরেজমিনে তদন্তও করেছেন। কিন্তু দুই লাখ টাকা ঘুষ না দিলে তালিকা থেকে নাম বাদ দেওয়ার কথা জানিয়ে দেন ইউএনও। এ সময় মুক্তিযোদ্ধা সাজু শেখের মেয়ে লুৎফা বেগম ইউএনওর হাত ধরে আকুতি মিনতি করে ইউএনওকে বলেন, স্যার আমাদের এতো টাকা দেওয়ার সামর্থ নাই, আমরা অপরাগত। একপর্যায়ে ইউএনও মুক্তিযোদ্ধাকন্যা লুৎফা বেগমকে সজোরে লাথি মারলে লুৎফা বেগম মাটিতে লুটে পড়েন। লুৎফা বেগমের মা আম্বিয়া বেগম জানান, তার মেয়েকে লাঞ্ছিত করার পর ইউএনও এবং পিআইও সেখান থেকে চলে যান।

পরবর্তীতে তারা জানতে পারেন তাদের বরাদ্দকৃত বীর নিবাসের ঘরটি বাতিল করেছেন ইউএনও। এ নিয়ে ওই পরিবারসহ সরকারি ঘর বরাদ্দের তালিকায় নাম থাকা মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের সদস্যদের মাঝে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে মৃত মুক্তিযোদ্ধা সাজু শেখের পরিবারের সদস্যসহ ঘর বরাদ্দের তালিকায় নাম থাকা অন্যান্য মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের সদস্যরা রবিবার সকাল ১০টার দিকে দেওয়ানগঞ্জের ইউএনও অফিসের সামনে ঝাড়– মিছিল করেছেন।

মিছিলপূর্ব সমাবেশে মুক্তিযোদ্ধা সাজু শেখের ছেলে গোলাম মোস্তফা তার বক্তব্যে বলেন, ‘আমার বাবা একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। সরকার আমাদের ঘর দিয়েছেন। ইউএনও আব্দুল্লাহ বিন রশিদের কথামতোই অমরা আমাদের জমিতে সীমানা দেওয়াল নির্মাণ করে মাটিও ভরাট করেছি। মাটি ভরাট কাজের জন্য আমাদের দুটি দো-চালা টিনের ঘর বিক্রি করেছি। এখন আমাদের মাথা গুঁজার ঠাঁই নেই। ইউএনও ও পিআইওর চাওয়া দুই লাখ টাকা আমরা কোথা থেকে দিবো। ঘর বরাদ্দের জন্য আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি। একই সাথে ইউএনও ও পিআইওর স্বেচ্ছাচারিতা ও ঘুষ দাবির বিচার প্রার্থনা করছি। এদিকে সকালে ঝাড়– মিছিলের পর ইউএনও আব্দুল্লাহ বিন রশিদ তাৎক্ষণিক তার কার্যালয়ে স্থানীয় সাংবাদিকদের ডেকে সংবাদ সম্মেলন করেন। সংবাদ সম্মেলনে ইউএনও আব্দুল্লাহ বিন রশিদ ঘুষ দাবি ও লাঞ্ছিত করার ঘটনাটিকে বানোয়াট দাবি করে সাংবাদিকদের বলেন, এসব অভিযোগ ভিত্তিহীন, বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত। একটি কুচক্রীমহল ওই মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে আমার বিরুদ্ধে উস্কিয়ে দিয়ে ঝাড়– মিছিল করিয়েছে।

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এ ধরনের আরও সংবাদ
সাপ্তাহিক বকশীগঞ্জ
        Develop By CodeXive Software Inc.
themesba-lates1749691102