রবিবার, ০১ অগাস্ট ২০২১, ০২:৩৭ পূর্বাহ্ন
Bengali Bengali English English
সদ্য পাওয়া :
কিডনী রোগী মিম এর পাশে দাঁড়ালেন জামালপুরের পুলিশ সুপার নাসির উদ্দিন করোনাকালীন সময় মানুষের পাশে প্রবাসী বাংলাদেশি শারমিন রহমান এবং শেখ আরিফ রাব্বানি জামি বকশীগঞ্জে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকের পাঁশে দাড়ালেন মেয়র নজরুল বকশীগঞ্জে অগ্নিকান্ড, ৭ লক্ষ টাকা ক্ষতি শারীরিক প্রতিবন্ধী নারীকে আর্থিক সহায়তা করলেন পুলিশ সুপার বকশীগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধা রশীদ মাষ্টারের মৃত্যু, সর্ব মহলে শোক বকশীগঞ্জে সাংবাদিক পরিবারের উপর হামলাকারী রাসেলের জামিন নামঞ্জুর জামালপুর প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে মাস্ক বিতরণ জামালপুরে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের ২৭তম  প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত জামালপুরে মুক্তিযোদ্ধার জমি অবৈধ ভাবে দখলের চেষ্টা

বকশীগঞ্জে সরকারী কনডম খোলা বাজারে বিক্রি, ইনজেকশনে নেওয়া হয় অর্থ

স্টাফ রিপোর্টার, বকশীগঞ্জ
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ১১ জুলাই, ২০২১
  • ৮২২ জন সংবাদটি পড়ছেন

বকশীগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি ॥
জামালপুরের বকশীগঞ্জে সীমান্তবর্তী বাজার সমুহে খোলাবাজারে পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের জন্ম বিরতি করণ কনডম খোলা বাজারে বিক্রি করা হচ্ছে। সরকারী এসব পন্য দোকানে দোকানে পাওয়া যাচ্ছে।
জন্ম বিরতি করণ ইনজেকশন বিনা মুল্যে বিতরণ করার কথা থাকলেও প্রতিটি ইনজেকশন ৬৫টাকা করে নেওয়া হয় বলেও অনেক ভুক্তভোগি পরিবার জানান। প্রতিটি কনডম কিনতে হয় ৩টাকা করে।
রবিবার দুপুরে কামালপুর ইউনিয়নের লাউচাপাড়া বাজারের বেশ কয়েকটি দোকানে এসব পন্য পাওয়া যায়। সেখানে গিয়ে কনডম বা খাবার বড়ি চাইলে সরকারী এসব পন্য পাওয়া যাচ্ছে।
এ নিয়ে স্থানীয় বিভাগ পুরোপুরি নিরব। অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ থেকে এসব পন্য সুর্যের হাসি ক্লিনিক এনজিও এসব পন্য তাদের কর্মী দ্বারা বিক্রি করে থাকে। সুর্যের হাসি ক্লিনিকের মোট ৩৩জন কর্মী এসব কাজের সাথে জড়িত।
এসব সরকারী কনডম বিক্রেতা আব্দুল আওয়াল জানান, স্থানীয় সুর্যের হাসি ক্লিনের স্বাস্থ্যকর্মী রত্না বেগমের নিকট হতে কিনে তিনি এসব বিক্রি করছেন।
এদিকে সুর্যের হাসি ক্লিনিকের কর্মী রত্না বেগম জানান, আমরা সুর্যের হাসি ক্লিনিক থেকে এসব পন্য কিনে তা বিক্রি করেছি।
এ বিষয়ে স্থানীয় সুর্যের হাসি ক্লিনিকের প্রশাসনিক কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান, তারা স্থানীয় পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ থেকে কিনে কর্মীদের মাধ্যমে দম্পত্তির মাঝে এসব বিক্রি করেন। তবে দোকানে বিক্রির বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।
বকশীগঞ্জ পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মাজেদুর রহমান জানান, তাদের কোন কর্মী এসব কাজের সাথে জড়িত নয়। জড়িতদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া কথা জানান তিনি।

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এ ধরনের আরও সংবাদ
সাপ্তাহিক বকশীগঞ্জ
        Develop By CodeXive Software Inc.
themesba-lates1749691102