বুধবার, ১৬ জুন ২০২১, ০১:৪৫ পূর্বাহ্ন
Bengali Bengali English English
সদ্য পাওয়া :
বকশীগঞ্জে সংবাদ প্রকাশের জের, থানায় চাঁদাবাজীর অভিযোগ করল আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য বকশীগঞ্জে রহস্য উদঘাটন করলেন ওসি, জিজ্ঞাসাবাদে জানালো সে বাংলাদেশী বকশীগঞ্জে এসডিজি নীতিমালা বাস্তবায়ন ও প্রত্যাশা নিয়ে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত বকশীগঞ্জে জনতার হাতে আটক ভারতীয় নাগরিককে উদ্ধার করল পুলিশ বকশীগঞ্জে কর্মরত পুলিশ কনেস্টবল নিজামের অর্থে ১ কিলোমিটার রাস্তা সংস্কার বকশীগঞ্জে দিনমজুর সেজে গণধর্ষন মামলার আসামী গ্রেফতার করল পুলিশ বকশীগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবক দলের দুই ইউনিটের আহ্বায়ক কমিটি গঠিত বকশীগঞ্জে শ্বশুর ও দেবরের নির্যাতনে মৃত্যু শয্যায় গৃহবধু বকশীগঞ্জে নারীসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক ৬ দফা দিবসে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

নিলক্ষিয়া ছাত্রলীগের সভাপতির পদ যেন আলাদীনের চেরাগ

সংবাদদাতার নামঃ
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৩ জুন, ২০২১
  • ৮৪৮ জন সংবাদটি পড়ছেন

স্টাফ রিপোর্টারঃ নিলক্ষিয়া ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সহযোগি সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ইউনিয়ন শাখার সভাপতির পদটি যেন এখন আলাদীনের চেরাগ। যার ছোঁয়ায় সব অবৈধ কাজ নিমিসেই বৈধ হয়ে যায়।
এই পদটি ব্যবহার করে চলছে অবৈধ বালুর ব্যবসা। দশানী নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে সেই বালু নিজ বাড়ীর সামনেই মজুদ করে রাখা হয়। সেখানেই দেওয়া আছে সাইন বোর্ড। মের্সাস সাদ্দাম এন্টার প্রাইজ। প্রোপ্রাইটর হিসাবে দেওয়া আছে আবু সাইদ (দুদু) এর নাম।
বর্ননার মধ্যে ইট, খোয়া, সাদা বালু, সিলেকশন বালু বিক্রির ঘোষনা থাকলে শুধু বালু দেখা যায়। যেগুলো সম্প্রতি পাশ্ববর্তী দশানী নদী থেকে অবৈধভাবে উত্তোলন করা ।
প্রকাশ্যে সভাপতির নাম দিয়ে সাইনবোর্ড দিয়ে অবৈধভাবে বালু বিক্রি করলেও সাধারন মানুষ ভয়ে কথা বলতে পারছে না।
সভাপতিরা ৪ ভাই। বড় যিনি তিনি দীর্ঘদিন সিলেটে একটি বেসরকারী কোম্পানীতে চাকুরী করতেন। সম্প্রতি চাকুরী হারিয়ে বাড়ীতে এসে খালেকের মোড়ে একটি ঔষুদের দোকান দিয়েছেন। একটি ঔষুধের দোকান দিতে হলে সরকারের অনুমোদন বা ড্রাগ লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা করার নিয়ম থাকলেও ছাত্রলীগের সভাপতির পদের যাদুর ছোয়া সেটিরও প্রয়োজন মনে করছেন না তারা। মেজো ভাই তার নিজের কমিটির সহসভাপতি। বর্তমানে তিনি একটি পত্রিকার সাংবাদিকও পরিচয় দেন। অপর ভাই বিমান বাহিনীতে চাকুরী করেন বলে জানাগেছে।
চার ভাই এর মধ্যে ৩ ভাই এর দাপটে এলাকার মানুষ অসহায়। দলীয় পদ ব্যবহার করে তাদের ক্ষমতার দাপটে এলাকার মানুষ আজ অসহায়। মুখ খোললেই মিথ্যা মামলা ও হামলার শিকার হতে হয়। সম্মানের ভয় কেউই তাদের বিরুদ্ধে মুখ খোলেন না। এরই মধ্যে তাদের হাত থেকে রক্ষা পায়নি নিজ কমিটির সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য।
প্রকাশ্যে উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী সদস্য নজরুল ইসলাম, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোফাজ্জল ইসলাম মিষ্টার ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক হাসানুজ্জামান সজিবসহ এই তিনজনের সাথে চরম বেয়াদবী করে এখন পর্যন্ত তারা রয়েছে বহাল তবিয়তে।
এ বিষয়ে বকশীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জুমান তালুকদারের দৃষ্টি আকর্ষন করলে তিনি সাংবাদিকদের জানান, এসব অভিযোগ প্রমান হলে এদের বিরুদ্ধে দলীয়ভাবে ভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এ ধরনের আরও সংবাদ
সাপ্তাহিক বকশীগঞ্জ
        Develop By CodeXive Software Inc.
themesba-lates1749691102