শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ০৫:১৯ অপরাহ্ন
Bengali Bengali English English

বকশীগঞ্জের সাহসের প্রতীক ইউএনও মুনমুন জাহান লিজা

স্টাফ রিপোর্টার, জামালপুর
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২২ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১০২৮ জন সংবাদটি পড়ছেন

স্টাফ রিপোর্টারঃ একদিন ফোনে কথা বলার জন্য ফোন করলে অপর প্রান্তে ছিলেন ইউএনও মুনমুন জাহান লিজা। কথা প্রসঙ্গ বলে উঠলেন, আমাকের মেয়ে বলবেন না, আমি মানুষ। কথাটা যেন কেমন কেমন লেগেছিল।

প্রথম যখন বকশীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসাবে যোগদান করেন তখনো তার কার্যক্রম নিয়ে একটু সন্দেহ ছিল। একজন নারী হিসাবে পারবেন কি? মনের মধ্যে প্রশ্ন জাগছিল কিন্তু কিছু দিনের সবকিছু ছাপিয়ে বর্তমানে সাহসের প্রতীক হিসাবে আর্বিভুত হয়েছে। যোগদানকালীন বকশীগঞ্জ সহকারী কমিশনার (ভুমি) মাতৃত্বজনিত ছুটির কারণেই দীর্ঘদিন সেই গুরুত্বপুর্নপদটিও ছিল শুন্য। কিন্তু শুধু উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসাবেই নয় সেই গুরুত্বপুর্ন এসিল্যান্ডের পদটিও সামলিয়েছেন সমান দক্ষতায়।

পুরো বকশীগঞ্জ উপজেলাটিও সাজিয়েছেন নিজের হাতে। উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অফিসে গেলেই ধরা পড়ে মুক্তিযোদ্ধাদের হাতের ছাপায় বাংলাদেশের মানচিত্রটি। যেটি একেবারেই বিরল। ১৯৭১ সালে মাহান স্বাধীনতা যুদ্ধে বকশীগঞ্জ ছিলো অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ন রনাঙ্গন। মোট মুক্তিযোদ্ধা এক দশমাংশ যুদ্ধ হয় এই বকশীগঞ্জে। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম স্বাধীনতা এলাকা এই বকশীগঞ্জের কামালপুর।
সেবা নিতে আসা নারীদের কথা চিন্তা করে তিনি করেছে মহিলাদের জন্য নামাজ খানা। এছাড়াও তিনি ব্রেষ্ট ফিডিং কর্নার করেছেন নিজস্ব চিন্তায়।
সর্বপরি নিজ কার্যালয়ের অফিসের ছাঁদের করেছে পরিপাটি এক ছাঁদ বাগান। ফলজ বৃক্ষ ও ফুলে ফুলে সাজিয়েছেন সেই ছাঁদ বাগান। যে কেউ একবার গেলে মন জুড়ানোর পাশাপাশি প্রকৃতির সাথে মিশে যাওয়ার অপুর্ব সুযোগ।
সর্বশেষ কঠিন পরীক্ষায় শতভাগ কর্তৃকার্য হয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী আশ্রয়ন প্রকল্পে ১৪২টি ঘর বরাদ্দ পায় বকশীগঞ্জ উপজেলা। মাত্র ১ লক্ষ ৭১ হাজার টাকা ব্যায় এসব ঘর নির্মান করা শুধু চ্যালেঞ্জেই নয় মহা যুদ্ধও। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মাহাবুব হাসান খান ও সহকারী কমিশানার (ভুমি) স্নিদ্ধা দাশকে নিয়ে ঝাপিয়ে পড়েন এই মহাযুদ্ধে।

জামালপুরের ৭টি উপজেলার মধ্যে বকশীগঞ্জ উপজেলা সবার আগে এসব ঘর নির্মাণ করে সারা জেলায় তাক লাগিয়ে দিয়েছেন এই মুনমুন জাহান লিজা।
বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে দিন আর রাত তার কাছে সমান। গাঢ়ো পাহড়ের পদদেশে অবস্থিত হওয়ায় পাহাড়ি হিমেল হাওয়ার কারণে অন্যান্য উপজেলার তুলনায় এখানের শীতের প্রকট অনেক বেশি। এত শীতের মাঝেও তিনি শীর্তাত মানুষের ঘরে ঘরে পৌছে গায়ে জড়িয়ে দিচ্ছেন শীতবস্ত্র।
এছাড়া শত ব্যস্ততার মাঝেও সপ্তাহে ১দিন তিনি গণশুনানীতে অংশ নেন এই মুনমুন জাহান লিজা। ব্যক্তিগত ২ সন্তানের জননী তিনি। ঘর সংসার সামলিয়ে দেশ ও দশের সেবা করে যাচ্ছেন ক্লান্তিহীন ভাবে।

 

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এ ধরনের আরও সংবাদ

Site Statistics

  • Users online: 0 
  • Visitors today : 15
  • Page views today : 17
  • Total visitors : 257,993
  • Total page view: 342,764
সাপ্তাহিক বকশীগঞ্জ
        Develop By CodeXive Software Inc.
themesba-lates1749691102