শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ০৫:১৮ অপরাহ্ন
Bengali Bengali English English
সদ্য পাওয়া :

ফোর-জি এক্সপ্রেসওয়েতে বাংলাদেশ

সংবাদদাতার নামঃ
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮
  • ১১৭৬ জন সংবাদটি পড়ছেন

বহুল প্রতীক্ষিত ফোর-জি বা চতুর্থ প্রজন্মের মোবাইল-ইন্টারনেট সেবার লাইসেন্স গ্রহণ করেছে গ্রামীণফোন, বাংলালিংক, রবি এবং রাষ্ট্রায়ত্ত অপারেটর টেলিটক।



ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের উপস্থিতিতে সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় ঢাকা ক্লাবে মোবাইল ফোন অপারেটর প্রধানদের হাতে এ সংক্রান্ত লাইসেন্স হস্তান্তর করা হয়।

লাইসেন্স পাওয়ার পরপরই মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো ঢাকাসহ বিভাগীয় শহরগুলোতে টেলিটক ছাড়া অন্য অপারেটরগুলোর ফোর-জি সেবা চালু হয়েছে। শিগগিরই টেলিটকে এই সেবা চালু করবে।

ফোর-জি চালু হওয়ার পর ইন্টারনেটের গতি বৃদ্ধি পাবে, এতে সুবিধা পাবেন গ্রাহকরা।

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ অপারেটরদের প্রধানদের হাতে ফোর-জি’র লাইসেন্স হস্তান্তর করেন।

গ্রামীণফোনের সিইও মাইকেল ফোলি, রবি’র এমডি এবং সিইও মাহতাব উদ্দিন আহমেদ, বাংলালিংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এরিক অস, টেলিটকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী গোলাম কুদ্দুস লাইসেন্স গ্রহণ করেন।

বিটিআরসি এবং মোবাইল ফোন অপারেটরদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব মোবাইল টেলিকম অপারেটরস অব বাংলাদেশ (অ্যামটব) আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার।

বাংলাদেশের মানুষ আরেকটি ইতিহাসের সাক্ষী হলো জানিয়ে মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, ফোর-জি সেবা চালুর মধ্য দিয়ে মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস, স্ট্যাডি সবকিছুর ডিজিটাল রূপান্তর হবে। এক সময় হয়তো ভয়েস কল বিলুপ্ত হয়ে যাবে এবং ডাটার উপর নির্ভরশীলতা বাড়বে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনার কথা তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, ফোর-জি চালু করার পর যেন সেবার মানটি উন্নত হয়।

ফোর-জি সিম পরিবর্তন করে নিতে টাকা গ্রহণ যুক্তিযুক্ত নয় জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, এমন কিছু করবেন না যাতে নিয়ম ভঙ্গ হয়।

বিটিআরসি চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ বলেন, বর্তমান সময়ে তরুণরা তথ্যপ্রযুক্তির দিকে যাচ্ছে। দিন দিন ভয়েস থেকে ডাটার ব্যবহার বাড়ছে। ফোর-জি’র পর উচ্চগতির ইন্টারনেট সেবা পাওয়া যাবে।

দেশে বর্তমানে মাত্র ১০ শতাংশ ফোর-জিসুবিধাসম্পন্ন হ্যান্ডসেট রয়েছে উল্লেখ করে চেয়ারম্যান বলেন, আমরা দেশেই মোবাইল ফোন তৈরির অনুমতি দিয়েছি।

ফোর-জির যুগে প্রবেশকে বাংলাদেশের জন্য ঐতিহাসিক দিন উল্লেখ করে গ্রামীণফোনের সিইও বলেন, আমরা এর মাধ্যমে উচ্চগতির ডাটা সেবা দেবো।

ফোর-জি সেবা চালু করায় আমাদের সবার গর্ব করা উচিত উল্লেখ করে রবি সিইও বলেন, আশা করি এর মাধ্যমে দেশের বড় পরিবর্তন করতে পারবো।

হ্যান্ডসেট ডিউটি কমানো, ফোর-জি যন্ত্রপাতির ডিউটি আরো সহজলভ্য এবং প্রত্যন্ত অঞ্চলে ফোর-জি সেবা দিতে ইনসেনটিভ মেকানিজম গ্রহণ করা যায় কি-না, সে ব্যাপারে নীতি নির্ধারকরা বিবেচনা করবেন বলে আশা করেন রবি সিইও।

বাংলালিংক সিইও বলেন, ফোর-জি সেবার মধ্য দিয়ে ডিজিটাল বাংলাদেশের আরো অর্থনৈতিক উন্নতি হবে। ফোর-জি’র মাধ্যমে উচ্চগতির ডাটা দেওয়া হবে। লাইসেন্স পাওয়ার পর থেকে রবি’র ১৮৯ সাইট ফোর-জি রান হচ্ছে বলেও জানান মাহতাব।

দুইশ’র বেশি বিটিএসের মাধ্যমে বাংলালিংক বিভাগীয় শহরে ফোর-জি সেবা চালু করেছে বলে জানিয়েছেন এক কর্মকর্তা।

টেলিটক ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, বাংলাদেশের চারটি মোবাইল অপারেটর লাইসেন্স পেলো। থ্রি-জিতে মানুষ যে ডাটা সুবিধা পেতো ফোর-জিতে তার চেয়ে অনেক বেশি সুবিধা পাবে। একটি আধুনিক ও উন্নত দেশ গঠনে টেলিযোগাযোগ ও ইন্টারনেট সব বিষয়ের সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত। এই সেবা চালু হওয়ায় সে সুযোগ পাওয়া যাবে।

প্রযুক্তি নিরপেক্ষতা রূপান্তর ও রেডিও কমিউনিকেশন অ্যাপারেটাস লাইসেন্স গ্রহণ করে গ্রামীণফোন, রবি, বাংলালিংক ।

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এ ধরনের আরও সংবাদ
সাপ্তাহিক বকশীগঞ্জ
        Develop By CodeXive Software Inc.
themesba-lates1749691102