বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ০১:০৮ অপরাহ্ন
Bengali Bengali English English
সদ্য পাওয়া :
মাদার তেরেসা গোল্ডেন এ্যাওয়ার্ড পাচ্ছেন প্যানেল মেয়র সেলিনা আক্তার বকশীগঞ্জে যুবদলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত ধানের শীষের সাথে মিশে আছে যার জীবন, সেইতো আব্দুল্লাহ আল সাফি লিপন বকশীগঞ্জে রাতে চালু থাকা ড্রেজারে বালু উত্তোলন বন্ধ করলেন ওসি বকশীগঞ্জে পুজা মন্ডব প‌রিদর্শন ও নগদ অর্থ সহায়তা দিলেন মেয়র নজরুল ইসলাম সওদাগর বকশীগঞ্জে মধ্যবয়সী নারী ধর্ষন, আটক-১ বকশীগঞ্জে যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার বকশীগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের আহবায়ক কমিটি বাতিল! দুই মামলায় রাশেদ চিশতির জামিন দেওয়ানগঞ্জে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাঙচুরের ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানালেন অধ্যাপক সুরুজ্জামান

যত সময় যাচ্ছে ততই আমরা নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলছি

সংবাদদাতার নামঃ
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ২৫ মে, ২০২০
  • ৩০০ জন সংবাদটি পড়ছেন

স্টাফ রিপোর্টারঃ দিন দিন বেড়েই চলছে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা এর সাথে পাল্লা দিয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে ঘর থেকে বের হওয়ার প্রতিযোগিতা।

জেলায় এ পর্যন্ত এ পর্যন্ত মোট রোগীর সংখ্যা ১৯১ জন। ডাবল সেঞ্চুরী হতে মাত্র ৯ বাকী রয়েছে। আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্য ডাবল সেঞ্চুরী অতিক্রম করবে এটি হলফ করেই বলা যায়। এভাবে চলতে থাকলে খুব কমসময়ের মধ্যেই মহামারী আমাদের সামনে এসে দাড়াবে। তখন হাজার চেষ্টা করলেও এটি থেকে পরিত্রান পাওয়া সম্ভব হবে না।

ইত্যিমধ্যেই পুরো জামালপুর জেলায় আক্রান্তদের মধ্যে জেলা শীর্ষ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সিভিল সার্জন, পুলিশের দ্বিতীয় সব্বোর্চ  কর্মকর্তা অতিরিক্ত পুলিশ সুপারসহ যারা করোনা পরীক্ষা করেন এদের মধ্যে ৪জন চিকিৎসকও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। সর্বশেষ ২৫ তারিখে নমুনা পরীক্ষায় ইসলামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

করোনা আক্রান্তদের তালিকায় স্বাস্থ্য কর্মী ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যা অর্ধেকের বেশি। আক্রান্তদের মধ্যে মিডিয়া কর্মীও রয়েছেন।

যত সময় যাচ্ছে ততই আমরা নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলছি।

একজন সাংবাদিক হিসাবে করোনায় সংক্রমনের প্রথম পর্যায়ে খবর নিতাম কোন দেশে কয়জন আক্রান্ত হয়েছে। পরে কোন জেলায় কয়জন।

এখন অত্যন্ত দুঃখের বিষয় যে কোন উপজেলায় কয়জন শেষে এখন কোন ইউনিয়নের কতজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে এটি হিসাব রাখতে হচ্ছে।

করোনা সংক্রমন নিয়ন্ত্রন রাখতে রাতদিন পরিশ্রম করে যাচ্ছেন বকশীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আ.স.ম জামশেদ খোন্দকার, বকশীগঞ্জ ‍উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ডাঃ প্রতাপ নন্দী, বকশীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম সম্রাট, বকশীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নজরুল ইসলাম সওদাগর।

বেসরকারী সংস্থার মধ্যে বকশীগঞ্জ সচেতন নাগরিক ঐক্যের সদস্যরাও করোনার সংক্রমন রোধে গুরুত্বর্পুণ ভুমিকা পালন করে যাচ্ছেন।

করোনায় ভয়াল থাবায় এখন পর্যন্ত বকশীগঞ্জে ১৪জন আক্রান্ত হয়েছেন। সাধারন জনগনের মধ্যে কামালপুর ইউনিয়নে ৩জন ও ২জন স্বাস্থ্য কর্মী। নিলক্ষিয়া ইউনিয়নের ১জন, সাধুরপাড়া ইউনিয়নে ১জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। বাকী সবাই বকশীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ও  স্বাস্থ্যকর্মী।

আশার খবর হলো ১৪জনের মধ্য ১০জনই সুস্থ্য হয়ে বাড়ী ফিরেছেন। বাকী ৪জন এখন আইসোলিশনে রয়েছে। সবাই সুস্থ্য রয়েছেন।

বকশীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ডাঃ প্রতাপ নন্দী জানান, আমরা বকশীগঞ্জকে একটি মৃত্যুহীন উপজেলা হিসাবে প্রতিষ্ঠা করতে চাই। এর জন্য তিনি সাধারন মানুষসহ সকল স্তরের মানুষকে নিরাপদ সামাজিক দুরুত্ব বজায় রেখে চলার অনুরোধ করেন।

 

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এ ধরনের আরও সংবাদ
সাপ্তাহিক বকশীগঞ্জ
        Develop By CodeXive Software Inc.
themesba-lates1749691102