রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ১২:০৩ পূর্বাহ্ন
Bengali Bengali English English

বকশীগঞ্জে সরকারবাড়ীর ব্যতিক্রমী উদ্যোগ ফলজ গাছের চারা বিতরণ

সংবাদদাতার নামঃ
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১৮ মে, ২০২০
  • ২২৭ জন সংবাদটি পড়ছেন

স্টাফ রিপোর্টারঃ
চলমান করোনাভাইরাস পরিস্থিতি দীর্ঘায়িত হলেও মানুষ যাতে খাদ্য ও পুষ্টি সংকটে না পড়ে এজন্য জামালপুরের বকশীগঞ্জ উপজেলার পাখীমারা গ্রামের সরকারবাড়ীর উদ্যোগ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যেতে না পারা শিক্ষার্থী ও দুস্থ ও অসহায় ১০০ পরিবারের মাঝে সোমবার প্রথম পর্যায়ে ১ হাজার পেঁপে, বেগুন ও লেবু গাছের চারা বিতরণ করা হয়েছে।
বকশীগঞ্জ উপজেলার পাখীমারা গ্রামের সরকারবাড়ীর বেশ ক’জন যুবক মানবতার সেবায় এবারও ব্যতিক্রমী উদ্যোগ গ্রহন করেছে।
জানা গেছে, সরকারবাড়ীর মরহুম মৌলভী মঈন উদ্দিনের দেশে বিদেশে অবস্থানরত পরিবারের সন্তানরা এলাকাবাসীর সাহায্যে করোনাক্লান্তিকালে এগিয়ে এসে সহায়তার হাত বাড়িয়েছেন। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যেতে না পারা শিক্ষার্থী ও কর্মহীন হয়ে পড়া দুস্থ ও অসহায় মানুষের সাহায্যার্থে এবার এগিয়ে এসেছেন কানাডা প্রবাসী ইউনিভার্সিটি অব ব্রিটিশ-কলম্বিয়া এর অধ্যাপক ড. মতিউল আলমের মেঝো ছেলে কানাডা প্রবাসী আন্তর্জাতিকভাবে পরিচিত “দ্য মাইন্ডসম্যাশ” চ্যানেলের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও একরামুল আলম আপন।দেশ বিদেশ থাকা সরকারবাড়ীর পরিবারের সদস্যদের পাঠিয়ে দেয়া অর্থে গত দুই মাস থেকে এলাকার ২’শ পরিবারের মাঝে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রীর প্যাকেট, শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাসামগ্রী বিতরণ করা হয়। ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ হিসেবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যেতে না পারা শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা চালিয়ে নিতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে পড়াশুনা কার্যক্রমও চালিয়ে যাচ্ছে। সরকারবাড়ীর রাসেল সরকার ও সুমন সরকার সমন্বয়ক হিসেবে বিত্তবানদের আর্থিক সহযোগিতা নিয়ে চিকিৎসার জন্য নগদ অর্থও গোপনে পৌঁছে দিচ্ছেন। তারা প্রতি সপ্তাহে ২০০ দুস্থ পরিবারকে ১০ কেজি চাল, এক কেজি আলু, এক কেজি মসুর ডাল ও এক কেজি করে লবণ বিতরণের কার্যক্রম চলমান রেখেছেন।
করোনা পরিস্থিতি দীর্ঘায়িত হলে মানুষ খাদ্য ও পুষ্টি সমস্যায় ভুগতে পারে বিষয়টি বিবেচনা করে এ সমস্যার সমাধানে এবার প্রথম পর্যায়ে ১ হাজার পেঁপে, বেগুন ও লেবু গাছের চারা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যেতে না পারা শিক্ষার্থী ও ১০০ পরিবারের মাঝে বিতরণ করা হয়। এ ছাড়াও এলাকার পতিত জমিতে স্বল্প মেয়াদী ফলজ গাছের চারা রোপণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।কেননা পেঁপে যথেষ্ট পুষ্টিসমৃদ্ধ, দ্রুত বড় হয় ও তাড়াতাড়ি ফল পাওয়া যায়। পেঁপে বেগুন ও লেবু বিক্রি করে অর্থও আয় হবে। তাই নিম্ন আয়ের প্রত্যেক পরিবারকে ৫টি করে এসব গাছের চারা দেয়া হচ্ছে।
পাখীমারা সরকারবাড়ীর সন্তান জামালপুর প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ কাফি পারভেজ বলেন, করোনাক্লান্তিকালে স্বল্প সময়ে পুষ্টিসমৃদ্ধ খাবার নিশ্চিতকরণে পুকুরপাড় ও পতিত জমিতে পেঁপে, বেগুন ও লেবু চাষ করতে আমাদের গ্রামে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে। পুষ্টিমানে অত্যন্ত সমৃদ্ধ এই ফল ও সবজি মানব দেহে রোগ প্রতিরোধে কাজ করে এবং পেঁপে স্বল্প মেয়াদী ফল, এর চাষের জন্য বেশি জায়গারও প্রয়োজন হয় না।তাই করোনা পরিস্থিতিতে আমাদের এ উদ্যোগ কিছুটা কাজে আসবে বলে মনে করি।
বকশীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আ.স ম জামশেদ খন্দকার বলেন, পেঁপে, বেগুন ও লেবু চারা বিতরণে যারা এ ব্যতিক্রমী উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন তাদের জানাই আমার আন্তরিক ধন্যবাদ। বিদ্যমান করোনা পরিস্থিতি দীর্ঘায়িত হলেও মানুষ যাতে খাদ্য ও পুষ্টি সংকটে না পড়ে এ উদ্যোগ অত্যান্ত প্রসংশার।

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এ ধরনের আরও সংবাদ
সাপ্তাহিক বকশীগঞ্জ
        Develop By CodeXive Software Inc.
themesba-lates1749691102