সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:৫৫ অপরাহ্ন
Bengali Bengali English English

রাজাকারের তালিকায় বাবুল চিশতির নাম, বকশীগঞ্জে মিষ্টি বিতরণ

সংবাদদাতার নামঃ
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ১২০০ জন সংবাদটি পড়ছেন

স্টাফ রিপোর্টারঃ সর্বশেষ রাজাকারের তালিকায় মাহাবুবুল হক চিশতি (বাবুল চিশতি)এর নাম থাকায় বকশীগঞ্জে চলছে আনন্দের বন্যা। তার এই তালিকা প্রকাশ হওয়ার মিষ্টি বিতরণ করেছে স্থানীয় উপজেলা ছাত্রলীগ।

এই বিতকৃত বাবুল চিশতির বিরুদ্ধে ৩টি যুদ্ধাপরাধ মামলা বিচারাধীন থাকার পরেও

২০১৩ সালে মুক্তিযুদ্ধার সার্টিফিকেট পান । শুধু তাই নয় মুক্তিযোদ্ধা কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিল তথ্য গবেষনা বিষয়ক সম্পাদকের পদে দায়িত্ব পালন করেন।এবং সর্বশেষ মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাই কমিটির দেওয়ানগঞ্জ ও বকশীগঞ্জ উপজেলায় সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।

মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রাণলায় কতৃক প্রকাশিত রাজাকারদের তালিকায় ৯০ নং পাতায় ৩৬নং ক্রমিকে মাহাবুবুল হক বাবুল চিশতির নাম রয়েছে।

পদ্মা ব্যাংক (সাবেক ফার্মাস ব্যাংক) কেলেংকারী ও অবৈধ সম্পদ অর্জন ও দুর্নীতির দায়ে প্রায় ডজেন খানেক মামলায় পুত্রসহ দীর্ঘ ২০ মাস যাবত জেলে রয়েছেন।তার বিরুদ্ধে ৩ যুদ্ধাপরাধ মামলা ছাড়াও দুদকের দায়েরকৃত ১৪টি মামলার আসামী।

স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধরা জানান, বাবুল চিশতি পাকিস্থানের পক্ষ নিয়ে খবর সংগ্রহের জন্য ১৯৭১ সালে মুক্তিযোদ্ধা প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে মুক্তিযোদ্ধা প্রশিক্ষণ শেষে বাংলাদেশে চলে এসে পাকিস্তানি বাহীনির সহযোগী হিসাবে বদর বাহিনীতে নাম যোগ দিয়ে হত্যা মিশন শুরু করেন। তার হাতে নিহত হয়েছে অসংখ্য শান্তিকামী মানুষ।

তার মুক্তিযোদ্ধা সার্টিফিকেট বাতিলের দাবীতে স্থানীয় মু্ক্তিযোদ্ধারা ও উপজেলা ছাত্রলীগ দীর্ঘদিন যাবত সংগ্রাম করে আসছে।

মুক্তিযোদ্ধা ফরহাদ আলী জানান, বাবুল চিশতি শুধু রাজাকারই নন, সে একজন প্রতারক। দেশের সাথে ও জাতির সাথে তিনি প্রতারণা করেছেন।মুক্তিযোদ্ধার প্রশিক্ষণ নিয়ে সেই অস্ত্র নিয়ে তিনি তৎকালীন পাকিস্তানে পালিয়ে এসে বদর বাহিনীতে যোগ দিয়ে বকশীগঞ্জে নিধণযজ্ঞ শুরু করেন।তার বিরুদ্ধে মানবতা বিরোধী ৩টি মামলা চলমান থাকা স্বত্বেও টাকার জোরে তিনি মুক্তিযুদ্ধার সাটিফিকেট সংগ্রহ করে তিনি মুক্তিযোদ্ধার ভাতা উত্তোলন করছেন।অবিলম্বে তার ভাতা বন্ধেরও দাবি করেন এই মুক্তিযোদ্ধা।

মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মোন্নাফ জানান, শুধু বাবুল চিশতির জন্য সারা বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধারাই বিতকৃত হয়েছেন।একজন চিহ্নিত রাজাকার হয়েও একমাত্র টাকার জোড়ে রাজাকার হয়েও মুক্তিযোদ্ধা হয়ে যান। বাবুল চিশতির নাম রাজাকার তালিকায় অন্তভুক্ত হওয়ায় পাপ মোচন হয়েছে বলেও জানান তিনি।

বকশীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও বকশীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জুমান তালুকদার জানান, মনের ভিতরে একটি কষ্ট দীর্ঘদিন পুষে রেখিছি। এই রাজাকার বাবুল চিশতি বকশীগঞ্জ ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে ১৬টি মামলা দিয়ে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের এলাকাছাড়া করেছি। বাবুল চিশতির মুক্তিযোদ্ধা সার্টিফিকেট দ্রুত বাতিল করার দাবীও জানান।

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এ ধরনের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2019 LatestNews
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102