বকশীগঞ্জ উপজেলা পরিষদকে আমি দুর্নীতিমুক্ত করেছি. রউফ তালুকদার

আবদুর রউফ তালুকদার

স্টাফ রিপোর্টারঃ সাপ্তাহিক বকশীগঞ্জকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বকশীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ তালুকদার বলেছেন, বকশীগঞ্জ উপজেলা পরিষদকে আমি দুর্নীতিমুক্ত করেছি। দুর্নীতি ও অনিয়মের কোনো আঁচ যাতে আমার পরিষদে না লাগে তার জন্য দিন-রাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছি।

এ সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়ে ২০১৯ সালের এপ্রিল মাসে আমি চতুর্থবারের মতো বকশীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসাবে দায়িত্বভার গ্রহণ করি। আমি যখন ১৯৯০ সালে প্রথমবার চেয়ারম্যানের দায়িত্বভার গ্রহণ করি তখন থেকেই আমি আমার বকশীগঞ্জ উপজেলায় নানা উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিচালনা শুরু করি। চতুর্থবারের মতো দায়িত্বভার গ্রহণের পর থেকেই উপজেলা পরিষদের প্রতিটি সেক্টরকে শতভাগ দুর্নীতি ও অনিয়ম মুক্ত করার জন্য আমি দিন-রাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছি। দায়িত্ব গ্রহণের পরেই আমি আমার উপজেলার শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও কৃষি ইত্যাদি বিষয়ের ওপর বেশি গুরুত্ব প্রদান করি। শুরুতেই আমি ইউনিয়নগুলোর দরিদ্র জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে প্রতিটি ইউনিয়নে প্রতিষ্ঠিত কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোতে কার্যক্রম সঠিকভাবে পরিচালিত হচ্ছে কি না তার তদারকি শুরু করি। আমার পরিষদের আওতাধীন সাতটি ইউনিয়নে মোট ২৮টি কমিউনিটি ক্লিনিকের কার্যক্রম চালু রয়েছে। আমার পরিষদের ইউনিয়ন পরিষদগুলো হলো বকশীগঞ্জ সদর ইউনিয়ন, বাট্টাজোড় ইউনিয়ন, নীলক্ষীয়া ইউনিয়ন, সাধুরপাড়া ইউনিয়ন, বগারচর ইউনিয়ন, মেরুরচর ইউনিয়ন ও ধানুয়া কামালপুর ইউনিয়ন।

এ ছাড়াও উপজেলা পরিষদে কর্মচাঞ্চল্য ফিরিয়ে আনতে আমি দায়িত্বভার গ্রহণের পর থেকেই প্রতি মাসে আমার উপজেলার সাতটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা পরিষদের অন্তর্গত সরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের সঙ্গে নিয়মিতভাবে মাসিক সমন্বয় সভা করে আসছি। আমি উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে হতদরিদ্রদের জন্য সরকার কর্তৃক প্রদত্ত ভিজিএফ, ভিজিটি ও ৪০ দিনের কর্মসূচি ইত্যাদি কার্যক্রমে যাতে কোনোরকম অনিয়ম না হয় তার জন্য কঠোর নজরদারি শুরু করি। তবে আশার কথা হলো, অন্য উপজেলাগুলোর ইউনিয়ন পরিষদগুলোতে মাঝে-মধ্যে নানা অনিয়ম আর দুর্নীতির কথা শোনা গেলেও আমার উপজেলার সাত ইউনিয়ন পরিষদে অনিয়ম-দুর্নীতি নেই বললেই চলে। আমার উপজেলায় দরিদ্র সুবিধাভোগীরা দুই ঈদেই অত্যন্ত পরিচ্ছন্নভাবে তাদের ভিজিএফ সাহায্য পেয়ে থাকেন। এ ছাড়াও আমি বয়স্ক ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা ও বিধবা ভাতা বিতরণের ক্ষেত্রেও সব অনিয়ম শতভাগ দূর করতে সক্ষম হয়েছি। অন্যদিকে আমি আমার উপজেলায় সরকারি প্রকল্পের সব কাজ যেন ৮০ ভাগ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয় সে দিকেও লক্ষ্য রাখছি। এ ছাড়াও দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকেই আমি উপজেলার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষার মানোন্নয়ন স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়ন, বৃক্ষরোপণ, গণসচেতনতা বৃদ্ধি, কৃষি ও যোগাযোগ অবকাঠামোর উন্নয়ন ইত্যাদি বিষয়ের ওপর বেশি গুরুত্ব প্রদান করি। এ ছাড়া আমি আমার উপজেলায় প্রতিবন্ধীদের জন্য দেওয়া সরকারের সব সাহায্য-সহায়তা সঠিকভাবে প্রদানের জন্য তাদের সংখ্যা নিরূপণের জরিপ কাজ শুরু করেছি।

যাদের নিজস্ব জমি আছে কিন্তু ঘর নেই এমন পরিবারগুলোকে আমি নিজে খোঁজখবর নিয়ে যাচাই-বাছাইয়ের মাধ্যমে নির্বাচিত করে ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে তাদের জমির ওপর ঘর উঠিয়ে দেওয়ারও কাজ শুরু করেছি। একটি ঘর তৈরি করতে সরকারের আড়াই লাখ টাকা ব্যয় হবে। প্রায় ৪৮টি পরিবারকে সরকারি সহায়তায় ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, উন্নয়নের দিক থেকে আমরা বকশীগঞ্জবাসী খুবই সৌভাগ্যবান। আমাদের বকশীগঞ্জ-দেওয়ানগঞ্জ ও মেলান্দহ-মাদারগঞ্জ আসন থেকে বারবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদ ও মির্জা আজম এমপির প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ সহযোগিতায় জামালপুর জেলায় বিভিন্ন সেক্টরে হাজার হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কর্মকান্ড সাধিত হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় বকশীগঞ্জ উপজেলায় গত পাঁচ বছরে প্রায় সাতশ কোটি টাকার বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড সাধিত হয়েছে। এখনও বকশীগঞ্জ ও জেলার বিভিন্ন স্থানে হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ তালুকদার বলেন, দেশের সব দলের প্রতি আমার অগাধ শ্রদ্ধা আর সম্মান রয়েছে। সব রাজনৈতিক দলের উদ্দেশ্যই মহৎ। দেশ ও দেশের জনগণের কল্যাণে দলের সব নেতৃবৃন্দই দিন-রাত পরিশ্রম করে থাকেন। ছোটবেলা থেকেই আমি আমার এলাকার মানুষদের সুখে-দুঃখে তাদের পাশে থাকার চেষ্টা করেছি। আমার এলাকার মানুষ আমাকে যথেষ্ট ভালোবাসে। আমিও তাদের ভালোবাসি। তাদের বিপদে-আপদে আমি সব সময় তাদের পাশে থাকার চেষ্টা করি। আর তাই দলমত নির্বিশেষে এলাকার মানুষ আমাকে ভোট দিয়ে বারবার নির্বাচিত করেন। এবারও আমি ক্ষমতাসীন দলের শক্তিশালী প্রার্থীর বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়েছি। এ সবই হলো আমার এলাকার মানুষের ভালোবাসা। তাই আমি আমার এলাকার মানুষের কাছে ঋণী।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ তালুকদারের নিজের গড়া সংগঠন বাংলাদেশ জনকল্যাণ সংগঠন সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি আমার এলাকার জনগণকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করতে চাই, তাদের পাশে সর্বক্ষণ থাকতে চাই। আর তাই এলাকার মানুষকে সঙ্গে নিয়ে আমি সম্পূর্ণ একটি অরাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ জনকল্যাণ সংগঠন গড়ে তুলেছি।
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হিসাবে কি প্রত্যাশা করেন জানতে চাইলে আব্দুর রউফ তালুকদার বলেন, আমি আমার প্রিয় বকশীগঞ্জ উপজেলাবাসীদের ভাগ্যোন্নয়নের জন্যই দিন-রাত পরিশ্রম করছি। আমার উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নের প্রতিজন দরিদ্র মানুষ যাতে খুব সহজেই সরকারের দেওয়া সব সুযোগ-সুবিধা ভোগ করতে পারে সে লক্ষ্যেই কাজ করছি। আমার উপজেলার প্রতিটি নাগরিকের শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও বাসস্থান নিশ্চিত করার প্রত্যয় নিয়েই আমি কাজ করে যেতে চাই। ব্যক্তি স্বার্থের চেয়ে আমি সাধারণ মানুষের স্বার্থকেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেই।

জামালপুর জেলার বকশীগঞ্জ উপজেলার বকশীগঞ্জ বাজার গ্রামে ১৯৫৬ সালের ২৫ ফেরুয়ারি এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন আব্দুর রউফ তালুকদার। এলাকার প্রতিটি মানুষের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব হিসেবে পরিচিত তিনি। তার সহোদর ইসমাইল হোসেন বাবুল তালুকদার বকশীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতির দায়িত্বে আছেন। বাবা মৃত মফিজল হক তালুকদার বকশীগঞ্জ সদর ইউনিয়ন পরিষদে দুবারের জন্য চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। এলাকায় একজন দানশীল ব্যক্তি হিসেবে তার বেশ সুনাম ছিল। ওই ইউনিয়ন পরিষদে আব্দুর রউফ তালুকদারও তরুণ বয়সে একবারের জন্য চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন।

পরবর্তী সময়ে আব্দুর রউফ তালুকদার বকশীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন করে ১৯৯০ সালে প্রথমবার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে তিনি মানুষের কল্যাণের জন্য নিজেকে উৎসর্গ করেন। কিন্তু প্রথমবার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হয়ে তিনি খুব বেশিদিন দায়িত্ব পালন করতে পারেননি। কেননা ১৯৯১ সালে বিএনপি সরকার ক্ষমতায় এসে সব উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম স্থগিত করে দেন। পরবর্তী সময়ে উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম ফের শুরু হলে আব্দুর রউফ তালুকদার নির্বাচনের মাধ্যমে এখন পর্যন্ত টানা চতুর্থবারের মতো বকশীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তার মতে মানব সেবার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়েই উপজেলা পরিষদের জন্ম। আর সেই লক্ষ্যকে সামনে রেখেই কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

     এই বিভাগের আরো খবর
ব্রেকিং নিউজঃ