Blog Image

বকশীগঞ্জে ভ্রাম্যমান আদালতে ৪ হাজার কেজি সেমাই ধ্বংস ও ১লক্ষ ৪০ হাজার টাকা জরিমানা

স্টাফ রিপোর্টার ঃ জামালপুরঃ জামালপুরের বকশীগঞ্জে ভ্রাম্যমান আদালতে ৪ হাজার কেজি (৪ মেট্রিক টন) কেজি হাতে তৈরী লাচ্ছা সেমাই ধ্বংস ও অনুমতিবিহীন অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে সেমাই তৈরীর দায়ে ১ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছে ভ্রাম্যমান আদালত।

বুধবার দুপুরে বকশীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দেওয়ান মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম নেতৃত্বে অভিযান পরিচালিত হয়।

ভ্রাম্যমান আদালত সুত্রে জানাযায়, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে আজ ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়। সেমাই কারখানায় গিয়ে দেখা গেল বিএসটি আই এর কোন অনুমোদন নেই, পরিবেশ অত্যন্ত অপরিষ্কার এবং অস্বাস্থ্যকর, এমনকি সেমাই উৎপাদনের জায়গা হতে মাত্র ৭ ফুট দূরেই খোলা ল্যাট্রিন- এরকম নোংরা পরিবেশে উৎপাদন করা হচ্ছে সেমাই। গুদামে গিয়ে দেখা গেল নোংরা পরিবেশে রাখা হচ্ছে এসব সেমাই। কোন প্যাকেট নেই, উৎপাদনের তারিখ নেই, মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ নেই। পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে চলছে জনস্বাস্থের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর এ জাতীয় অনুমোদনবিহীন সেমাই উৎপাদন।

অনুমোদনবিহীন সেমাই উৎপাদন এবং বাজারজাতকরণের দায়ে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন, ২০০৯ এর ৪১ ধারায় মোঃ দুলালকে ৪০,০০০/= টাকা এবং সোহাগ স্টোর সংলগ্ন গুদামের স্বত্ত্বাধিকারী মোঃ সুলতান কে ১০০০০০/= টাকা মোট ১,৪০,০০০/=টাকা জরিমানা করা হয়। এ ছাড়া, প্রায় ৪ টন অনুমোদনবিহীন সেমাই জব্দ করে ধ্বংস করা হয় এবং সেমাই কারখানা বন্ধ করে দেয়া হয়।

এদিকে ঘন ঘন ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার প্রতিবাদে প্রায় ২ ঘন্টা শুধু মুদি দোকান বন্ধ রাখে ব্যবসায়ীরা। পরে স্থানীয় বকশীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নজরুল ইসলাম সওদাগরের হস্তক্ষেপে দোকান খুলে দোকান মালিকরা।

নিউজটি শেয়ার করুন..

[custom_share_link]

এ ধরনের আরও খবর