শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১১:৪১ অপরাহ্ন
Bengali Bengali English English
সদ্য পাওয়া :
জুমের মাধ্যমে কামালপুর মুক্ত দিবস পালিত শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় চির বিদায় নিলেন আবুল কালাম আজাদ মেডিসিন আবুল কালাম আজাদ মেডিসিনের মৃত্যু ॥ নুর মোহাম্মদের শোক আবুল কালাম মেডিসিনের মৃত্যুতে এমপি আবুল কালাম আজাদের শোক কামালপুর মুক্ত দিবসের সকল অনুষ্ঠান বাতিল জামালপুরে জেলা আ’লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদের মৃত্যু বকশীগঞ্জে অবৈধ ৪ ড্রেজারে আগুন, পাইপ ধ্বংস জামালপুরে আ’লীগের দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহ করলেন ৪৫ জন বকশীগঞ্জ প্রেসক্লাবে অতিরিক্ত সচিব শাওলী সুমনের রূহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া মাহফিল বক‌শীগঞ্জ উপ‌জেলা বিএন‌পি`র আহ্বায়ক ক‌মি‌টির প‌রি‌চি‌তি সভা

বকশীগঞ্জে ভিক্ষাবৃত্তি ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ১৩ ভিক্ষুক, উপজেলা প্রশাসনের সহায়তায় পুনর্বাসন

সংবাদদাতার নামঃ
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ৪ মার্চ, ২০১৯
  • ৬১৪ জন সংবাদটি পড়ছেন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ জামালপুরের বকশীগঞ্জে ভিক্ষুক পুনর্বাসন কর্মসূচির আওতায় ১৩ জন ভিক্ষুককে পুনর্বাসন করা হয়েছে। এর ফলে তারা ভিক্ষাবৃত্তি ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরেছে তারা। উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় গতকাল সোমবার দুপুরে তাদের পুনর্বাসন করা হয়।
জানা গেছে, বকশীগঞ্জ উপজেলায় বিভিন্নভাবে জরিপ করে ২৩৫ জন ভিক্ষুকের তালিকা করা হয়। এর মধ্যে বকশীগঞ্জ পৌর এলাকার বিভিন্ন গ্রামে ৩৩ জন ভিক্ষুক রয়েছে। ভিক্ষুকমুক্ত বকশীগঞ্জ উপজেলা গড়ার লক্ষ্যে দীর্ঘ কয়েক মাস থেকে নিরলসভাবে পরিশ্রম করে যাচ্ছেন ইউএনও দেওয়ান মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম। উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, উপজেলার সকল সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের এক দিনের বেতন , ইউপি চেয়ারম্যান ও বিশিষ্টজনদের আর্থিক সহযোগিতায় পুনর্বাসন কর্মসূচির ব্যবস্থা করা হয়।
তারই ধারাবাহিকতায় গতকাল সোমবার পৌর এলাকার ১৩ জন ভিক্ষুককে পুনবাসন করা হয়। এরমধ্যে ৬ জনকে ভ্যান গাড়ি, ২ জনকে সেলাই মেশিন, একজনকে পিঠা তৈরির উপকরণ ও ৫ হাজার টাকা, দুই জনকে সেলুনের কাজের জন্য ২০ হাজার করে টাকা, একজনকে ভ্রাম্যমাণ ব্যবসার জন্য ৫ হাজার টাকা প্রদান করা হয়।
উপজেলা মিলনায়তনে ভিক্ষুক পুনর্বাসন অনুষ্ঠানে এ সময় ইউএনও দেওয়ান মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম, পৌর কাউন্সিলর হারুনুর রশিদ, উপজেলা টেকনিশিয়ান রাশেদুজ্জামান মিজু, স্থানীয় সাংবাদিকসহ ভিক্ষুক পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।
পুনর্বাসন হওয়া রেখা আক্তার জানান, আমি ইচ্ছাকৃত ভাবে ভিক্ষাবৃত্তি পেশায় আসিনি। অভাব অনটন ও নানা কারণেই এ পেশায় এসেছিলাম। তিনি পুনর্বাসনের জন্য পিঠা তৈরির উপকরণ ও ৫ হাজার টাকা পাওয়ায় ভিক্ষা করবেন না বলেও অঙ্গিকার করেন।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার দেওয়ান মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম জানান, জামালপুর জেলাকে ভিক্ষুকমুক্ত করতে জেলা প্রশাসকের নিদেশে উপজেলা পযায়ে পুনর্বাসন কমসূচি হাতে নিয়েছি। পযায়ক্রমে সকল ভিক্ষুককে পুনর্বাসন করা হবেও তিনি জানান।

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এ ধরনের আরও সংবাদ
সাপ্তাহিক বকশীগঞ্জ
        Develop By CodeXive Software Inc.
themesba-lates1749691102