শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০২:৪৯ অপরাহ্ন
Bengali Bengali English English

প্রথম ধাপেই বকশীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

সংবাদদাতার নামঃ
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২৫ জানুয়ারী, ২০১৯
  • ১২৬৯ জন সংবাদটি পড়ছেন

বিশেষ প্রতিনিধি: মেয়াদ অনুসারে ৫ ধাপে অনুষ্ঠিত হবে এবারের উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। প্রথম ধাপের ভোট হবে আগামী ৮ অথবা ৯ মার্চ। আর দ্বিতীয় থেকে পরবর্তী ধাপে ভোট হবে ঈদের পর। সাতদিন পরপর এসব ধাপের ভোট নেয়া হবে।

প্রথম ধাপেই বকশীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন।

আগামী ২১ মার্চের মধ্যে যেসব উপজেলা পরিষদের মেয়াদ শেষ হবে সেগুলো ৮ বা ৯ মার্চ প্রথম ধাপে, ২৬ মার্চের মধ্যে যেগুলোর মেয়াদ শেষ হবে সেগুলো ১৮ মার্চ দ্বিতীয় ধাপে, ৩০ মার্চের মধ্যে মেয়াদ শেষ হবে এমন উপজেলাগুলো ২৪ মার্চ তৃতীয় ধাপে এবং ১৯ জুনের আগে যেগুলোর মেয়াদ শেষ হবে সেগুলো ৩১ মার্চ চতুর্থ ধাপে ভোট গ্রহণের সিদ্ধান্ত হয়েছে। অবশিষ্ট উপজেলাগুলোর নির্বাচন হবে পঞ্চম ধাপে।


মোট ৪৯২টি উপজেলা পরিষদের মধ্যে অন্তত ৪৬০টিতে নির্বাচন অনুষ্ঠানের পরিকল্পনা রয়েছে কমিশনের।

এরইমধ্যে স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের জন্য ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তারিখ, নির্বাচিতদের শপথ গ্রহণ এবং পরিষদের প্রথম সভার তারিখের তথ্য সংগ্রহ করেছে কমিশন। সে তথ্য অনুসারে পাঁচটি ধাপে নির্বাচন যোগ্য উপজেলাগুলোকেও চিহ্নিত করা হয়েছে। তবে প্রস্তুত করা তালিকায় কিছু উপজেলা যোগ ও বিয়োগ হতে পারে। আগামী ৩ ফেব্রুয়ারি নির্বাচন কমিশন এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে।

৮ ও ৯ মার্চ প্রথম ধাপের নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের আটটি জেলার ৬৯ উপজেলাকে চিহ্নিত করা হয়েছে।

রংপুর বিভাগের পঞ্চগড় জেলার সদর, আটোয়ারি, বোদা, দেবীগঞ্জ ও তেঁতুলিয়া। দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ, কাহারোল, বিরল, বোচাগঞ্জ, সদর, খানসামা, চিরিরবন্দর, পার্বতীপুর, ফুলবাড়ী, নবাবগঞ্জ, বিরামপুর, হাকিমপুর ও ঘোড়াঘাট। নীলফামারী জেলার ডোমার, ডিমলা, সদর, জলঢাকা, সৈয়দপুর ও কিশোরগঞ্জ, কুড়িগ্রাম জেলার ভুরুঙ্গমারী, ফুলবাড়ী, উলিপুর, নাগেশ্বরী, রাজারহাট, রাজিবপুর, সদর, চিলমারী ও রৌমারী।

ময়মনসিংহ বিভাগের জামালপুর জেলার সদর, সরিষাবাড়ী, মেলান্দহ, ইসলামপুর, বকশীগঞ্জ, দেওয়ানগঞ্জ ও মাদারগঞ্জ। নেত্রকোনা জেলার বারহাট্টা, দুর্গাপুর, খালিয়াজুরী, কলমাকান্দা, কেন্দয়া, মদন, মোহনগঞ্জ, পূর্বধলা ও সদর।

সিলেট বিভাগের সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক, দোয়ারাবাজার, সদর, জামালগঞ্জ, শাল্লা, ধর্মপাশা, বিশ্বম্ভরপুর, তাহিরপুর ও জগন্নাথপুর। হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল, মাধবপুর, চুনারুঘাট, সদর, নবীগঞ্জ, আজমিরীগঞ্জ, বানিয়াচং ও শায়েস্তাগঞ্জ।

এই ৬৯টি উপজেলার সঙ্গে চেয়ারম্যান-ভাইস চেয়ারম্যান পদশূন্য হয়েছে অথবা পদত্যাগ করেছে এমন উপজেলা পরিষদগুলোর নির্বাচনও প্রথম ধাপের সঙ্গে করার পরিকল্পনা রয়েছে কমিশনের। একাদশ জাতীয় সংসদ সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে গিয়ে বেশ কিছু উপজেলার চেয়ারম্যান পদত্যাগ করেন। তাদের পদত্যাগপত্র সে সময় না হলেও পরে গ্রহণ করা হয়েছে।

যেসব উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানরা পদত্যাগ করেছেন সেগুলো হচ্ছে- পিরোজপুরের মঠবাড়ীয়া, ঢাকার নবাবগঞ্জ ও ধামরাই, সিরাজগঞ্জের চৌহালী ও রায়গঞ্জ, জয়পুরহাট সদর, রাজশাহীর চারঘাট, যশোর সদর, বগুড়ার গহাবতলী ও শাহজাহানপুর, গাইবান্ধার সাঘাটা, মানিকগঞ্জ সদর, খাগড়াছড়ির রামগড়, কুষ্টিয়া সদর, মানিকগঞ্জের সিংগাইর, গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ ও গোবিন্দগঞ্জ, ময়মনসিংহের গৌরিপুর, রংপুরের গংগাচড়া ও মিঠাপুকুর, নারায়ণগঞ্জের সেনারগাঁ, ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ড, শেরপুরের নালিতাবাড়ী, নেত্রকোনার কেন্দুয়া, জামালপুরের সরিষাবাড়ী, চট্টগ্রামের মিরসরাই, নাটোরের গুরুদাসপুর, ময়মনসিংহের ত্রিশাল ও ঈশ্বরগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া এবং সুনামগঞ্জের সদর।

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এ ধরনের আরও সংবাদ
সাপ্তাহিক বকশীগঞ্জ
        Develop By CodeXive Software Inc.
themesba-lates1749691102