বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:২১ পূর্বাহ্ন
Bengali Bengali English English

দুর্নীতির দুই মামলায় বাবুল চিশতির আবারও ৬ দিনের রিমান্ড

সংবাদদাতার নামঃ
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ৫ নভেম্বর, ২০১৮
  • ৯৪৪ জন সংবাদটি পড়ছেন

অনলাইন ডেস্কঃ ঋণ মঞ্জুরে অনিয়ম ও দুর্নীতির পৃথক দুই মামলায় দি ফারমার্স ব্যাংকের অডিট কমিটির সাবেক সভাপতি বাবুল চিশতীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৬ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন ঢাকার সিএমএম আদালত।


মামলা দুটির তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপপরিচালক মো. সামসুল আলমের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত রোববার এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন। বাবুল চিশতীর সঙ্গে অপর আসামি জিয়াউদ্দিন আহমেদকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়েছে। তিনি ফারমার্স ব্যাংকের এসভিপি। এ দুই আসামি বর্তমানে জেলে বন্দি থাকায় দুদক কর্মকর্তা চাইলে জেল গেটে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারবেন। একই মামলায় বাবুল চিশতীর ছেলে রাশেদুল হক চিশতী ও চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী সাহাবুদ্দিন আলিমকে (বর্তমানে জেলে বন্দি) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড চেয়েছে দুদক। এর মধ্যে রাশেদুল হক চিশতীকে ৭ নভেম্বর ও সাহাবুদ্দিন আলমকে ১১ নভেম্বর আদালতে হাজির করতে বলা হয়েছে। তাদের উপস্থিতিতে শুনানি হবে। ২৯ কোটি ৫১ লাখ ৮৫ হাজার ৮২০ টাকা প্রদানের মাধ্যমে আত্মসাতের অভিযোগে ফারমার্স ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও বর্তমানে ন্যাশনাল ব্যাংকের এমডি চৌধুরী মোশতাক আহমেদ, ফারমার্স ব্যাংকের অডিট কমিটির সাবেক সভাপতি বাবুল চিশতী ও চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী সাহাবুদ্দীন আলমসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক। মামলার অপর আসামিরা হলেন চট্টগ্রামের এসএ গ্রুপ ও মেসার্স লায়লা বনস্পতি প্রডাক্ট লিমিটেডের মালিক সাহাবুদ্দিন আলমের স্ত্রী ইয়াসমিন আলম, ফারমার্স ব্যাংকের সাবেক অতিরিক্ত পরিচালক (পরে পরিচালক) একেএম শামীম ও এসইভিপি দেলোয়ার হোসেন। দণ্ডবিধির ৪০৬/৪০৯/১০৯ ধারা, ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারা এবং ২০১২ সালের মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের ৪ ধারায় মামলাটি রেকর্ড করে পুলিশ।


মামলায় ব্যাংক কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়, তারা ব্যাংকিং রীতিনীতি উপেক্ষা করে এবং সিআইবি রিপোর্ট পরীক্ষা না করে ঋণ মঞ্জুরের আগেই চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী সাহাবুদ্দীন আলমের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে ২৯ কোটি ৫১ লাখ ৮৫ হাজার ৮২০ টাকা প্রদানের মাধ্যমে আত্মসাৎ করেন। বাবুল চিশতী ও তার ছেলের বিরুদ্ধে দুদক পৃথক মামলাটি করে ১০ এপ্রিল। মামলায় ফারমার্স ব্যাংক গুলশান শাখার মাধ্যমে ১৩৮ কোটি ৮২ লাখ ৯২ হাজার টাকা মানি লন্ডারিংয়ের অভিযোগ আনা হয় তাদের বিরুদ্ধে। এতে বলা হয়, আসামি রাশেদুল হক চিশতীর স্বাক্ষরে জামালপুরের বকশীগঞ্জ জুট মিলস লিমিটেডের চলতি হিসাব নং ০১১১১০০০০২৩৬৩-এ পরিচালিত লেনদেন ছিল সন্দেহজনক। হিসাবের বিপরীতে ২০১৩ সালের ১৮ নভেম্বর থেকে চলতি বছরের ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত ১৩৮ কোটি ৮২ লাখ ৯২ হাজার টাকা নেয়া হয়। কিন্তু দুদকের অনুসন্ধানে ঋণ নেয়ার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এ ধরনের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2019 LatestNews
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102