শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০২:১৬ অপরাহ্ন
Bengali Bengali English English

এমপিকে রাজাকারের সন্তান বলায় মুক্তিযোদ্ধাকে মারধোর

সংবাদদাতার নামঃ
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
  • ১০৮৮ জন সংবাদটি পড়ছেন

অনলাইন ডেস্কঃ জামালপুরের ইসলামপুরে স্থানীয় এমপি ফরিদুল হক খান দুলালকে রাজাকারের সন্তান ও বিএনপি-জামায়াতের পৃষ্ঠপোষক বলে দাবি করায় তার সমর্থকরা মুক্তিযোদ্ধা গফুর প্রধানের উপর হামলা চালিয়ে মারধর এমপি ফরিদুল হক খান দুলালের সর্থকরা।

শনিবার (১ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে এগারো টা’য় দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের গঙ্গাপাড়া গ্রামে হামলার ঘটনাটি ঘটে। পরে তাকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করা হয় বলে পারিবারিক সুত্রে জানাগেছে।

এ ঘটনার পরপরই মুক্তিযোদ্ধার উপর হামলার প্রতিবাদে ক্ষুব্ধ ​আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল করে এমপি সমর্থক উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান চৌধুরী শাহিনের বাড়ী ঘেরাও করেছে। এই নিয়ে এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।


স্থানীয়ভাবে জানা যায়, বঙ্গবন্ধুর ৪৩তম শাহাদৎ বার্ষিকী উপলক্ষে  শুক্রবার সন্ধায় সদর ইউনিয়নের গঙ্গাপাড়া গ্রামে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভা থেকে এমপির বিরুদ্ধে রাজাকারের সন্তান ও বিএনপি-জামায়াতকে প্রতিষ্ঠিত করার অভিযোগ তুলে বক্তারা।

ওই সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক মেয়র জিয়াউল হক জিয়া।

বীর মুক্তিযোদ্ধা গফুর প্রধানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাভোকেট আব্দুস সালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক পৌর মেয়র আব্দুল কাদের সেখ, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান শফিকুল আলম দুলাল, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক সদস্য মঞ্জুর মোর্শেদ হ্যাপী, যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির উপ-সাংস্কৃতিক সম্পাদক মীর শরীফ হাসান লেনিন প্রমুখ।

নেতৃবৃন্দ বলেন, বঙ্গবন্ধুর কন্যা জনত্রেী শেখ হাসিনা বাব বার দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়ণ করার নির্দেশ দিলেও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও এমপি ফরিদুল হক খান দুলাল তার উল্টো কাজ করছেন। তিনি বিএনপি-জামায়াত থেকে আওয়ামীলীগে অনুপ্রবেশকারী সুবিধাবাদীদের নেতৃত্বে এনে তাদের প্রতিষ্ঠিত করছেন।
এরই জের ধরে শনিবার সকালে ফরিদুল হক খান দুলাল এমপি’র সমর্থকরা মুক্তিযোদ্ধা গফুর প্রধানের উপর হামলা চালায়।


এ ব্যাপারে ফরিদুল হক খান দুলাল এমপি বলেন, আমার বাবা কি ছিল ইসলামপুরের মানুষ জানে। গফুর প্রধান মুক্তিযোদ্ধা হলেও বেঁফাস কথা বলে। নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রতিপক্ষের প্রার্থীরা আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে।

ইসলামপুর থানার ওসি শাহীনুজ্জামান খান জানান, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল গফুর প্রধান সন্ত্রাসী হামলায় আহত হওয়ার খবর পেয়েছি। আমি তার সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করেছি। তিনি চিকিৎসার জন্য ব্যস্ত আছেন বলে জানিয়েছেন এবং চিকিৎসা শেষে থানায় এসে তিনি অভিযোগ দিতে চেয়েছেন। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওযা হবে

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এ ধরনের আরও সংবাদ
সাপ্তাহিক বকশীগঞ্জ
        Develop By CodeXive Software Inc.
themesba-lates1749691102