বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ১১:৩৫ পূর্বাহ্ন
Bengali Bengali English English
সদ্য পাওয়া :

মনোনয়ন যুদ্ধে এগিয়ে রয়েছেন খন্দকার ফারুক আহাম্মেদ

সংবাদদাতার নামঃ
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৭ জুন, ২০১৮
  • ২২৩২ জন সংবাদটি পড়ছেন

গোলাম রাব্বানী নাদিম, শ্রীবরদী থেকে ফিরে ॥ নির্বাচনে হাওয়া বয়েছে শেরপুর-৩ আসনে। শ্রীবরদী-ঝিনাইগাতি নিয়ে গঠিত আসনে আওয়ামীলীগের ডজন খানেক প্রার্থী মনোনয়নের আশায় বিভিন্ন ব্যানার ফেস্টুন দিয়েছেন রাস্তায় রাস্তায়। এর মধ্যে কেন্দ্রীয় যুবলীগের সদস্য খন্দকার ফারুক আহামেদ রয়েছেন সবার চেয়ে এগিয়ে।
১৯৭২ সালে রানীশিমুল ইউনিয়ন ছাত্রলীগ থেকে আসা বর্তমানে তিনি কেন্দ্রীয় যুবলীগের সদস্য। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশা নিয়ে নেমেছেন মাঠে। স্বৈরাচারী বিরোধী আন্দোলন, খালেদা জিয়া বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে গিয়ে প্রায় ২ ডজনের বেশি মামলায় হয়রানী শিকার হয়েছেন এই রাজপথ কাপাঁনো রাজনীতিবিদ।
১৯৭৮ সালে জামালপুর আশেক মাহামুদ কলেজ শাখার সভাপতি হন খন্দকার ফারুক আহাম্মেদ। পরবর্তীতে আশেক মাহামুদ কলেজের সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত সাহিত্য বিষয়েক সম্পাদক হন।
১৯৮১ সালে জামালপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক এবং ১৯৮৩ সাল থেকে টানা ৫ বছর জামালপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।
১৯৮১ সাল থেকে একটানা ত্রিশ বছর জামালপুর প্রেসক্লাবের সাথে সংযুক্ত থেকে বর্তমানে তিনি আজীবন সদস্য এই সাংবাদিক সংগঠনটির। এ মধ্যে তিনি দীর্ঘদিন প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদকসহ সহসভাপতির মত গুরুত্বপুর্ন দায়িত্বও পালন করেন।
পারিবারিক জীবনে জনপ্রিয় রাজনীতিবিদ খন্দকার খুররুম এর ছোট ভাই তিনি। এমপি থাকাকালীন শ্রীবরর্দী-ঝিনাগাতিতে সাড়ে ৩ হাজার কালভার্ট ও প্রায় ১২ হাজার কিলোমিটার কাঁচা-পাকা রাস্তা নির্মাণ ও সংস্কার করেছিলেন খন্দকার খুররুম। স্বপ্ন ছিল জামালপুর-শেরপুর-বকশীগঞ্জ-কামালপুর রেলওয়ে চালু করণের। এছাড়া জামালপুর-শেরপুর রাস্তার ব্রহ্মপুত্র নদীর উপর সেতু নির্মাণের প্রথম দাবী করেন এই খন্দকার খুররুম। তৎকালীন শ্রীবরদী উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকায় বন সংক্রান্ত মামলায় জর্জরিত ছিল সীমান্ত এলাকার মানুষ। এ সময় খন্দকার খুররম ক্ষমতায় এসে মাত্র ৭দিনের মধ্যে সমস্ত মামলা খারিজ বা নামে মাত্র জরিমানা করে এলাকাবাসী প্রিয়পাত্র হয়ে যান।
রাজনৈতিক পট-পরিবর্তণে আওয়ামীলীগে যোগ দেন খন্দকার খুররম। ২০০১ সালে নির্বাচণে মনোনয় না পেলে এবার আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন প্রাপ্তিটা ছিল সময়ের ব্যাপার কিন্তু উন্নয়নের স্বপ্নদৃষ্টা খন্দকার খুরুরমের অকাল মৃত্যুতে তার অসমাপ্ত কাজকে সফল করতে মাঠে নেমেছেন তারই ছোটভাই খন্দকার ফারুক আহাম্মেদ।
সরকারী আমলা থেকে রাজনীতি আসা বর্তমান এমপি ফজলুল হক চাঁন সরকারের গত সাড়ে নয় বছরে এলাকায় না আসায় সারা দেশে ব্যাপক উন্নয়ন হলেও শ্রীবরদী ও ঝিনাইগাতি উন্নয়ন বঞ্চিত বলে অভিযোগ করে ফারুক আহাম্মেদ বলেন, সারা বছর তৃণমুলের আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা কষ্ট করে দলকে গুছিয়ে রাখে আর নির্বাচনের সময় সরকারী আমলারা ছুঁ মেরে মনোনয়ন পেয়ে যায়।
আওয়ামীলীগের ভোটে নির্বাচিত হলেও আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের সাথে এসব এমপি-মন্ত্রীদের দুরুত্ব বেড়ে যায়। ফলে আওয়ামীলীগের তৃণমুল নেতাকর্মীরা পদে পদে বঞ্চনার শিকার হয়ে থাকে বলেও মন্তব্য করেন এই রাজনৈতিকবিদ।
খন্দকার ফারুক আহাম্মেদ হঠাৎ করে নির্বাচনের মাঠে আসায় আওয়ামীলীগের রাজনীতি অনেকটাই উল্টোপাল্টা হয়ে গেছে। আসন্ন সংসদ নির্বাচনে শ্রীবরদী-ঝিনাইগাতি একমাত্র যোগ্যতম রাজনৈতিক ব্যক্তি হিসাবে মনোনয়ন প্রাপ্তি তিনিই যোগ্যতম প্রার্থী এটাই মনে করেন শেরপুর-৩ আসনের তৃনমুলের নেতাকর্মীরা।

আসনে আওয়ামী লীগ চারবার, বিএনপি চারবার, জাতীয় পার্টি দুইবার বিজয়ী হয়।  এবার আসনে আওয়ামী লীগের ১৩ জন বিএনপির একজন মনোনয়ন প্রত্যাশী রয়েছেন। তবে আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল প্রকাশ্য রুপ নিয়েছে এখানে।

এদিকে, একক প্রার্থী হিসেবে বিএনপির নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন সাবেক সংসদ সদস্য জেলা বিএনপি সভাপতি মাহমুদুল হক রুবেল।

এই আসনে মোট ভোটার সংখ্যা লাখ ১১ হাজার ২৮২ জন

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এ ধরনের আরও সংবাদ
সাপ্তাহিক বকশীগঞ্জ
        Develop By CodeXive Software Inc.
themesba-lates1749691102