বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০১:৪২ অপরাহ্ন
Bengali Bengali English English
সদ্য পাওয়া :
দুই মামলায় রাশেদ চিশতির জামিন দেওয়ানগঞ্জে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাঙচুরের ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানালেন অধ্যাপক সুরুজ্জামান বকশীগঞ্জে পৌর আওয়ামীলীগ ও ছাত্রলীগের সংর্ঘষ ।। আহত অর্ধশতাধিক বকশীগঞ্জে নারী ও শিশু ধর্ষণ প্রতিরোধে বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত দেওয়ানগঞ্জে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাঙচুর বকশীগঞ্জে এসডিজি অর্জনে জেলা নেটওয়ার্কের ষান্মাসিক সভা অনুষ্ঠিত সরিষাবাড়ীতে পুকুরে ডুবে ভাই বোনের মৃত্যু বকশীগঞ্জে ইলিশ রক্ষায় নিজেই মাঠে নামলেন ইউএনও মুনমুন জাহান লিজা জামালপুরে সাত দিনব্যাপী পুলিশ সপ্তাহ শুরু বকশীগঞ্জে উপজেলা পরিষেদের মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

দু্ই উপজেলায় এমপি আবুল কালাম আজাদের উন্নয়ন চিত্র ও কিছু সমস্যা

সংবাদদাতার নামঃ
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১২ মার্চ, ২০১৮
  • ২০১৪ জন সংবাদটি পড়ছেন

গোলাম রাব্বানী নাদিমঃ বর্তমান মহাজোট সরকারের আমলে জামালপুর-১, দেওয়ানগঞ্জ-বকশীগঞ্জ আসনে সংস্কৃতিমন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ নিজ নির্বাচনী এলাকায় উন্নয়ন চিত্রঃ
সরকারি সূত্রে এবং এলাকার মানুষের কাছে জানা যায়, এলাকার রাস্তাঘাট, চিকিৎসা খাত, শিক্ষা, বিদ্যুত্ খাত এবং নদী ভাঙ্গন রোধে উন্নয়ন করেছেন। দেওয়ানগঞ্জ উপজেলাকে নদী ভাঙ্গন থেকে রক্ষার জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক প্রায় ১৪ কোটি ৬১ লাখ টাকা, বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাধের পুনঃনির্মাণ কাজের জন্য ১ কোটি ৩৫ লাখ টাকা, এলজিইডির ৫৪ কি.মি. রাস্তা পাকাকরণ বাবদ ২৯ কোটি ২৫ লাখ টাকা, ৭৯ কি.মি. পাকা রাস্তা পুনঃমেরামত বাবদ ৯ কোটি ১০ লাখ টাকা ব্যয় হয়। জামালপুর-১ আসনে মহাজোট সরকারের সময় ৪৬৭ মি. (১৪টি ব্রীজ) দৈর্ঘ্য ব্রীজ নির্মাণের লক্ষে ৯ কোটি ২২ লাখ টাকা ব্যয় করা হয়।
বকশীগঞ্জ উপজেলায় ৮১ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্বাচন অফিস এবং ৯৫ লাখ টাকা ব্যয়ে খাদ্য গুদাম নির্মাণ করা হয়।
শিক্ষার মান উন্নয়নের লক্ষে দুই উপজেলায় ৯০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণ এবং ২৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসা এমপিওভুক্তি করাসহ ১১টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন, কলেজের ৩টি ভবন ও ১টি ডরমেটরী নির্মাণ করা হয়।
উপজেলা দুটিতে ৫ কোটি ২৪ লাখ টাকা ব্যয়ে পাবলিক লাইব্রেরী নির্মাণ করা হয়েছে।
২৫ কি.মি. দৈর্ঘ্য সীমান্ত সড়ক নির্মাণ করা হয়েছে। সড়ক ও জনপথ বিভাগ কর্তৃক ৫০ কি.মি. সড়ক সংস্কার কাজ সম্পন্ন হয়েছে এবং ৩৪৫ মি. দৈর্ঘ্য ব্রীজ নির্মাণের লক্ষে ৯ কোটি ২০ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে। স্বাস্থ্য খাতে দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ৩১ শয্যা হইতে ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণ হয়েছে এবং বকশীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ৩১ শয্যা হইতে ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণ করা হয়েছে এবং দুই উপজেলা দুটিতে নতুন অ্যাম্বুলেন্স সরবরাহসহ বেশ কয়েকটি কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণ করা হয়েছে। দেওয়ানগঞ্জে ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছে এবং বকশীগঞ্জেও ফায়ার সার্ভিসের কাজ শেষ হয়েছে, শীঘ্রই এটি উদ্বোধন করা হবে। এমপি আবুল কালাম ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভাকে সি গ্রেড হতে বি গ্রেডে উন্নীত করা হয়েছে এবং ৩৩ বর্গ কি.মি. আয়তন বিশিষ্ট নবগঠিত বকশীগঞ্জ পৌরসভার কার্যক্রম শুরু হয়েছে।
ইতিমধ্যেই পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এত মেয়র পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী নজরুল ইসলাম সওদাগর বিপুল ভোটে এগিয়ে রয়েছেন। জনগন আশা করছেন দ্রুত সময়ের মধ্যে বাকী একটি কেন্দ্রে ভোট গ্রহনের মধ্যে দিয়ে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করা হবে। ভিত্তিহীন ও মনগড়া অভিযোগে নির্বাচনে নির্বাচন বাতিল বা পুনঃ নির্বাচন চেষ্টা করা নিয়ে অনেকেই মনে করেন স্বচ্ছ ও পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ এমপি আবুল কালাম আজাদ জনগণের রায়ের প্রতি সম্মান দেখিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নিয়ে দ্রুত পৌর নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করে জনপ্রতিনিধিদের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরের মাধ্যমে বকশীগঞ্জ পৌর এলাকার উন্নয়নের মনোনিবেশ করবেন।
বিদ্যুত্খাতে মহাজোট সরকারের সময়ে ২০০ কি.মি. নতুন লাইন নির্মাণ কাজের বেশীর ভাগই সম্পন্ন হয়েছে। আরও নতুন নতুন এলাকা সংযুক্ত হয়েছে। ২০১৮ সালের মধ্যে প্রতিটি ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার ঘোষনা দিয়েছেন এমপি আবুল কালাম আজাদ।
বকশীগঞ্জে মহিলা মার্কেট নির্মাণ ও আশ্রয়ন প্রকল্প নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছে।
দেওয়ানগঞ্জ-বকশীগঞ্জের মধ্যে সরাসরি যোগাযোগ স্থাপনের লক্ষে সড়ক ও জনপথ বিভাগ কর্তৃক ৫২ কোটি টাকা ব্যয়ে বকশীগঞ্জ-বালুগাঁও-দেওয়ানগঞ্জ সড়কে ৪টি সেতুর প্রকল্প কাজ সম্পন্ন হয়েছে এবং এলজিইডি কর্তৃক বকশীগঞ্জ-জববারগঞ্জ-দেওয়ানগঞ্জ সড়কে ৪টি সেতু নির্মাণ কাজও সমাপ্ত হওয়ার পথে। নির্ধারিত সময়ের আগেই এসব কাজ সমাপ্ত করা হবে।
এলাকার মানুষের প্রাণের দাবী নন্দীবাজার টু কমালপুর রাস্তাটি ইতিমধ্যে একনেক থেকে অনুমোদিত হয়েছে। খুব কম সময়ে এ রাস্তার নির্মাণ কাজ নির্মাণ শুরু হবে বলে জানা যায়। এটি বাস্তবায়ন হলে অর্থনৈতিক ও সামাজিকভাবে বকশীগঞ্জের উন্নয়নে নতুনদ্বার উন্মোচিত হবে।
এলাকার উত্তরাঞ্চলের মানুষের প্রাণের দাবি সানন্দবাড়ী সেতুর নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। যতদূর জানা যায়, এই এলাকার উন্নয়নের সূচনা মুলত আবুল কালাম আজাদ-এর হাতেই। ৯১ ও ৯৬ সালে এমপি নির্বাচিত হয়ে বকশীগঞ্জ ও দেওয়ানগঞ্জের সাথে উত্তরাঞ্চলের লোকজনের যোগাযোগের প্রধান দুটি রাস্তা যথাক্রমে বকশীগঞ্জ-সারমারা-তারটিয়া-সানন্দবাড়ী রাস্তা এবং দেওয়ানগঞ্জ-বাহাদুরাবাদ-তারাটিয়া রাস্তা পাকাকরণ করেন এবং গুরুত্বপূর্ণ জিঞ্জিরাম নদীর উপর পাথরেরচর ব্রীজ ও ঝালরদর ব্রীজসহ অনেক সেতু ও সড়ক নির্মাণ করেন।
জামালপুর জেলার একমাত্র বিনোদন কেন্দ্র লাউচাপড়া পিকনিক স্পট উন্নয়নসহ বকশীগঞ্জ টু লাউচাপড়া রাস্তার ১৩ কি.মি. পাকাকরণের মাধ্যমে সরাসরি যোগাযোগ ব্যবস্থা স্থাপন করেন।
এছাড়াও ব্যক্তিগতভাবে দুস্থ মানুষের মাঝে গরু, ছাগল, সেলাই মশিন, রিকশা, ভ্যান বিতরণ করেছেন এমপি আবুল কালাম আজাদ।
এতসব উন্নয়ন হলেও সুষ্ঠু তদরকির অভাবে এসব উন্নয়নের সুফল থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এলাকার মানুষ। এমপি আবুল কালাম আজাদ একটু সচেষ্ট হলে উন্নয়নের সুফল সবার ঘরে ঘরে পৌছে যাবে। যা এখন সময়ের দাবী
মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স নির্মাণ কাজ শেষ হলেও অন্যান্য উপজেলায় ইত্যিমধ্যেই এসব মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স হস্তান্তর করা হলেও অজ্ঞাত কারণে এটি এখনো হস্তান্তর করা হয়নি। দ্রুত এটি হস্তান্তরের ব্যবস্থা নিবেন এমপি আবুল কালাম আজাদ।
বকশীগঞ্জ-লাউচাপড়া রাস্তা নির্মিত হলেও ৩/৪টি বাঁকের কারণে ওই রাস্তা দিয়ে বাসসহ অন্যান্য গাড়ী যাতায়াত করতে পারে না।
অন্যান্য উপজেলায় ফায়ার সার্ভিস স্টেশন চালু হলেও সেটিও উদ্বোধনের অপেক্ষায় রয়েছে।
৫০ শয্যা হাসপাতালের উন্নতিকরণ করা হলেও এখন পর্যন্ত জনবলের অভাবে চালু করা সম্ভব হয়নি।
২ কোটি ৬৩লক্ষ ব্যায়ে পাবলিক লাইব্রেরীতে পর্যাপ্ত বই না থাকায় সুফল থেকে বঞ্চিত শিক্ষার্থীরা।
জামালপুরের একমাত্র স্থল বন্দর দীর্ঘদিন যাবত বন্ধ রয়েছে, ফলে হাজার হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে পড়ে রয়েছে।
বর্তমানে পাশ্বর্তী শেরপুর জেলাকে রেল সংযোগ করার জন্য সরকার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। এক্ষেত্রে শেরপুরের সাথে বকশীগঞ্জ উপজেলা পর্যন্ত রেলসংযোগ করা আওয়ামীলীগের পরিবারের ঘণিষ্ঠ আবুল কালাম আজাদের জন্য খুব একটা কঠিন হবে না বলে মনে করেন এলাকাবাসী।
জেলার অন্যান্য উপজেলার কলেজ সমুহে অর্নাস কোর্স চালু হলেও বকশীগঞ্জ সরকারী কলেজে এখন পর্যন্ত অর্নাস কোর্স চালু করা সম্ভব হয়নি। কিয়ামত উল্লাহ কলেজে অর্নাস কোর্স চালু, বকশীগঞ্জ এনএম উচ্চ বিদ্যালয় ও খাতেমুন মঈন মহিলা কলেজকে জাতীয় করণ এখন সময়ের অন্যতম দাবী।

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এ ধরনের আরও সংবাদ
সাপ্তাহিক বকশীগঞ্জ
        Develop By CodeXive Software Inc.
themesba-lates1749691102