বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:২২ অপরাহ্ন
Bengali Bengali English English

সুরুজ্জামানের স্ট্যাটাস, আলোচনার ঝড়

সংবাদদাতার নামঃ
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ৬২৯ জন সংবাদটি পড়ছেন

স্টাফ রিপোর্টারঃ জেলা আওয়ামীলীগের কোষাধ্যক্ষ সুরুজ্জামান হোসাইন, গত ৭ ডিসেম্বর রাত ১১.৪৫ মিনিটের তার নিজস্ব ফেসবুক ওয়ালে একটি স্ট্যাটাস দেন। স্ট্যাটাসের লেখা ছিল-

বকশীগঞ্জে আ’লীগের দুই বিদ্রোহী প্রার্থী বহিস্কার ॥ যুবলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষনা।। এর পরও শেষ রক্ষা হবে কি? বাস্তবতা কি বলে??
এর পরে একটি স্থানীয় পত্রিকার অনলাইন ভার্সনের একটি সংবাদ কপি করে পেষ্ট করেন।

তার পর তিনি লেখেন, নিম্ন হুবহ দেওয়া হল ঃ

একটি রাজনৈতিক দলের দৈন্যতা যখন এক্সট্রিম পর্যায়ে পৌঁছে তখন সেটির সার্বিক সাংগঠনিক শৃংখলা রক্ষার লক্ষে বহিষ্কার ও কমিটি বিলুপ্তিকরণের বিধানটি শেষ অস্ত্র হিসাবে ব্যবহার করা হয়।। শেষ পর্যন্ত এই অস্ত্রটি ব্যবহার করেই নির্বাচনী মাঠে নামতে হলো আওয়ামী লীগকে। সর্বশেষ পন্থা অবলম্বন করা হয় একেবারে শেষ সময়ে। যখন অন্য আর কোন উপায়ে পরিবেশ কন্ট্রোলে আনা সম্ভব না হয়। কেবল তখনই এই অস্রটির প্রয়োগ করা হয়। বকশীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ সেটিই করেছে।

আমার প্রশ্ন – 
*দলের এই দৈন্যতা নিয়ে শেষ রক্ষা হবে কি? সে জন্যে অপেক্ষা করতে হবে আগামী ২৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

*নির্বাচনী মাঠের চলমান বাস্তবতা কি বলে? বাস্তবতা কে অস্বীকার করে সামনে চলা খুবই কঠিন।আসন্ন এই পৌর নির্বাচনে নিজেদের বিভিন্নমুখি দৈন্যতার কারণে কাংখিত বিজয় অর্জন খুবই কঠিন মনে হয়। এই নির্বাচনে প্রতিপক্ষ বিএনপি না। নিজের ছায়া সাথে যুদ্ধ করলে, শক্তিরই বিনাশ হবে। কাংখিত বিজয় অর্জনের পথে এটিই প্রধান প্রতিপক্ষ। সময় এখনও আছে। পরস্পর বিরোধী অবস্থান থেকে সরে আসাতে হবে খুবই দ্রুত।

পরে আসে নানা ধরনের মন্তব্য গুলি মন্তব্য গুলি দেওয়া হল- 

Al Mamun Mojid আমার ও প্রশ্ন শেষ অস্ত্র ব্যবহার করে সমস্যা সমাধান হয়েছে কি?আমি মনে করি না,কারণ তার বহিস্কার হয়েছে নির্বাচনের মাঠ থেকে কিন্তু নয়,তাদের ও কিছু ব্যক্তি ইমেজ আছে তাতে যে তারা ভোট পাবেনা তা কিন্তু নয় ৷আর নির্বাচনের সময় বহিস্কার এটা একটা সাংস্কৃতিক পর্যায়ে পৌছে গেছে ৷নির্বাচনের পরে সাধারণ ক্ষমা যেটা গত জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রমানিত।

Balayet Shadin জামান ভাই, আপনার কথাটি সঠিক। তবে ঘটনাটি হতে পারে “পরি মনি তোমার ভয় নাই, আমরা তোমার সাথে নাই “

Md Foisal Chowdhury Joy উপজেলা আওয়ামীলীগ লিডার কিভাবে উপজেলা যুবলীগ কে বিলুপ্তি করে।লিডার উপজেলা আওয়ামীলীগ এর সাধারণ সম্পাদক একা কেন, সভাপতি সাহেব কেন নাই।সাধারণ সম্পাদক কি সকল ক্ষমতার উর্দে।সাধারণ সম্পাদক একজন দক্ষ্য অভিনেতা দেখি ২৮ তারিখে তার কোন চরিত্র ফুটে উঠে।

Hridoy Akanda Chamak সবাই জানে এইসব ঘটনা,কারন আপনার আমার এলাকায় যেমন গ্রুপিং তেমন সব উপজেলায় আওয়ামীলীগ বনাম আওয়ামীলীগ।?গ্রুপিং তাহলে বলুন চাচা এর জন্য দায়ী কে?

Jamal Pasha সকলের শেষ রক্ষা হয় যার যার কাজের মাধ্যমে… আমরা আমাদের সরকারের সময় কার কার সাথে কি কি করেছি, কার জন্য কি করেছি, দলীয়ভাবে তৃনমূল নেতাকর্মী দের জন্য কি করেছি, আর নিজের জন্য কি করেছি তাহলেই বুঝে আসবে শেষ….?

Fokir Ahshanul Erfan মাঠ ফাকা ভেবে আওয়ামী নামধারীরা এসব করছে…..রুখে দিতে হবে

Md Kafee বস,কেন এমন হচ্ছে?তাহলে কি ধরে নিবো দলে সমন্বয়হীনতার অভাব না অন্য কিছু কাজ করছে।

Bimal Ghosh Logo এই বহিস্কার নতুন কিছু নয়।বলদ বাদ দিয়ে বিড়াল দিয়ে যদি হালবাওয়া যেতো তাহলে কৃষক এত দামের বলদ কিন্ত না।আপনারা অযোগ্য ব্যাক্তি দিয়ে কমিটি করেছে,তারা তো বহিস্কারহবে।আপনারা ভালো কোন ও কমিটি দিতে পারছেন,সামনে আরো কত বহিস্কার হবে বস্ একমাএ জননেএী শেখহাসিনা জানে।

 

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ধরনের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2019 LatestNews
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102