রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪:৩৭ পূর্বাহ্ন
Bengali Bengali English English
সদ্য পাওয়া :
যে কারণে স্থগিত হল বকশীগঞ্জে আ’লীগের বর্ধিতসভা জামালপুর পৌরসভা নির্বাচনঃ প্রার্থী হিসাবে অধ্যাপক সুরুজ্জামানের পরিচিতি ভাষা সৈনিক এডভোকেট আশরাফ হোসেনের ইন্তেকাল বকশীগঞ্জে হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা না থাকায় দুর্ভোগ চরমে বকশীগঞ্জে পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি রুখতে বাজার মনিটরিংয়ে ইউএনও জনগনকে থানায় যেতে হবে না, পুলিশ যাবে জনগনের কাছে.. সীমা রানী সরকার জামালপুর জেলা আ’লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা বকশীগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর ছবি ভাঙচুর, জেলা আ’লীগের ৩ সদস্যের তদন্ত টিম গঠনের সিদ্ধান্ত নুর মোহাম্মদের পদত্যাগ পত্র গ্রহন করে নাই জামালপুর জেলা আওয়ামীলীগ বিএনপি নেতা খায়ের তালুকদারের ইন্তেকাল

৫৭ ধারা বাতিলের দাবি ঢাবি সাংবাদিক সমিতির

সংবাদদাতার নামঃ
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ৮ জুলাই, ২০১৭
  • ৬৩২ জন সংবাদটি পড়ছেন

বিশেষ প্রতিনিধি ঃ তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি (আইসিটি) আইনের ৫৭ ধারা বাতিলের দাবি জানিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি। একই সঙ্গে এ আইনে সর্বশেষ যমুনা টেলিভিশনের জৈষ্ঠ্য প্রতিবেদক ও সমিতির সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হোসাইনসহ সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত সকল মামলা প্রত্যাহারেরও দাবি জানানও হয়। শনিবার সন্ধ্যায় সমিতির সভাপতি ফরহাদ উদ্দীন ও সাধারণ সম্পাদক ফররুখ মাহমুদ এক বিবৃতিতে এ দাবি জানান। বিবৃতিতে আরও বলা হয়, আইন প্রণয়ন করা হয় মানুষের অধিকার সুরক্ষা, নিপীড়িত, নির্যাতিত, নিগৃহীত ও নিষ্পেষিত মানুষের পাশে দাঁড়ানো এবং শোষকের হাত থেকে শোষিতকে রক্ষার জন্য। অথচ বর্তমানে অনেক ক্ষেত্রেই তার উল্টোটা পরিলক্ষিত হচ্ছে। কখনও আইন প্রণয়নে ‘অস্বচ্ছতা’কে কাজে লাগিয়ে আবার কখনও আইনের ‘অপব্যবহার’-এর মাধ্যমে একটি মহল সাধারণ মানুষকে হয়রানি করছে। এ হয়রানি থেকে বাদ যাচ্ছে না দেশের কৃতি গণমাধ্যম কর্মীরাও। নেতৃদ্বয় বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি আইনটি সংশোধন করে ২০১৩ সালে জাতীয় সংসদে পাস হওয়ার পর থেকে সমোলাচনা শুরু হয়। কেননা, এ আইনে পুলিশকে সরাসরি মামলা করার ও পরোয়ানা ছাড়া গ্রেপ্তারের ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। মানবাধিকারকর্মী ও সংবাদকর্মী ছাড়াও অনলাইন ব্যবহারকারীদের শঙ্কা ছিল-এ আইনের অপব্যবহার হতে পারে। সেই শঙ্কাই সত্য হয়েছে। যার শিকার হয়েছেন মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সন্তান সাংবাদিক প্রবীর সিকদারসহ আরও অনেকে। তারা বলেন, গত ২রা মে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক ঘোষণা দিয়েছেন- তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি (আইসিটি) আইনের ৫৭ ধারা থাকছে না। কিন্তু এখনও এ ঘোষণার বাস্তবায়ন দেখছি না। গণতান্ত্রিক এ দেশে সুশাসন নিশ্চিত করতে এ আইনটি অবশ্যই বাতিল করতে হবে।

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ধরনের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2019 LatestNews
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102