বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ১১:১২ পূর্বাহ্ন
Bengali Bengali English English

ইসলামপুর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ত্রান বিতরণ

সংবাদদাতার নামঃ
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ৮ জুলাই, ২০১৭
  • ১১৫৫ জন সংবাদটি পড়ছেন

বিশেষ প্রতিনিধিঃ জামালপুরের ইসলামপুরে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরণ করা হয়েছে। ৮ জুলাই শনিবার দিনভর এ ত্রান বিতরণ করে উপজেলা প্রশাসন।

ইসলামপুরের উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিএম এহছানুল মামুন জানান, বন্যার্ত প্রায় ৫০০ টি পরিবারের মাঝে আজ প্রায় ১০০০ প্যাকেট শুকনা খাবার বিতরণ করা হয়। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ১০ মেট্রিকটন চাউল এবং নগদ ১০,০০০/- টাকা বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে।
এছাড়া ইসলামপুর ০৮ টি আশ্রয় কেন্দ্র বন্যাদুর্গত লোকদের জন্য প্রস্তুত রাখা রয়েছে। মেডিকেল টিম, ফায়ার ব্রিগেড টিম প্রস্তুত রয়েছে বলে তিনি জানান।

অব্যাহত পানি বৃদ্ধির ফলে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে।পানি বৃদ্ধিতে ইসলামপুর উপজেলা পৌর এলাকাসহ তলিয়ে গেছে পশ্চিাঞ্চলের নোয়ারপাড়া, চিনাডুলী, বেলগাছা,পাথর্শী ও কুলকান্দি ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল। পানির তোড়ে বলিয়াদহ ব্রিজের একাংশ ভেঙ্গে গেছে। তলিয়ে যাচ্ছে রাস্তাঘাট,বাড়িঘর ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে ইসলামপুর উপজেলার কয়েক হাজার পরিবার লক্ষাধীক মানুষ। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে পানি উঠায় ২১ টি প্রতিষ্ঠানের পাঠদান কার্যক্রাম বন্ধ রাখা হয়েছে।

গত ১২ ঘন্টায় যমুনার পানি ৪ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে (সন্ধ্যা-৬টা) ৩৭ সেন্টিমিটার বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

জামালপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) এর পানি পরিমাপক আব্দুল মান্নান  জানান, সন্ধ্যা ৬ টায় যমুনার পানি বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্ট এলাকায় ১৯.৮৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।এখানে পানির স্বাভাবিক উচ্চতা ১৯.৫০ সেন্টিমিটার।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কামরুজ্জামান জানান, যমুনার পশ্চিমাঞ্চল ও চিনাডুলী ইউনিয়নে বামনা, ড্যাপরাইপ্যাচসহ ২১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষা পাঠদান বন্ধ করা হয়েছে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা গোলাম মোস্তুফা জানান, উপজেলার বলিয়াদহ উচ্চ বিদ্যালয়ে পানি উঠায় পাঠদান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে পরিস্থিতির অবনতি হলে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাতিউর রহমান জানান, রোপা আমন ধান, বীজতলা, পাট, উঠতি ফসল ইক্ষু, কাঁচা সবজী বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে।

এদিকে অব্যাহত পানি বৃদ্ধির ফলে জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার দুরমুঠ, কুলিয়া, নাংলা, মাহমুদপুর, ঘোষেরপাড়া ও ঝাউগড়া ইউনিয়নের নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে।
বন্যার পানির তোরে মেলান্দহের কুলিয়া ইউনিয়নে বলিদা খালের ভাঙ্গনের মুখে ওই এলাকার একমাত্র সড়কের একটি ব্রিজ ধ্বসে পড়েছে। স্থানীয়রা সেখানে বাঁশের সাঁকো তৈরী করে পারাপার হচ্ছেন।

একই ইউনিযনের পূর্বসাদিপাটি গ্রামের একটি মসজিদসহ সাদিপাটি বাজার এলাকার ২০টি বাড়ি বলিদা খালের ভাঙ্গনে বিলীন হয়েছে।

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ধরনের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2019 LatestNews
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102