রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ১০:৩৭ অপরাহ্ন
Bengali Bengali English English

ভারত-পাকিস্তান হাইভোল্টেজ ম্যাচ

সংবাদদাতার নামঃ
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ৩ জুন, ২০১৭
  • ৯৩২ জন সংবাদটি পড়ছেন

এটি কেবল এক ক্রিকেট ম্যাচ নয়, এটা তার চেয়ে অনেক বেশি- দুই প্রতিবেশী দেশের ম্যাচের আগে এমন মন্তব্যটা পাকিস্তানের গ্রেট অলরাউন্ডার আসিফ ইকবালের। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে গ্রুপ পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ভারত-পাকিস্তান মুখোমুখি হচ্ছে । বার্মিংহামের এজবাস্টন মাঠে খেলা শুরু বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৩টায়। ক্রিকেটের সবচেয়ে জনপ্রিয় এ দ্বৈরথ সর্বশেষ দেখা গিয়েছিল তাও আড়াই বছর আগের কথা। ২০১৫ বিশ্বকাপে সর্বশেষ মোকাবিলায় নামে ভারত-পাকিস্তান। ওই ম্যাচে যথারীতি জয় কুড়ায় ভারত। বিশ্বকাপ ইতিহাসে ভারতের বিপক্ষে একবারও জয়ের মুখ দেখেনি পাকিস্তান। তবে আইসিসির অভিজাত ওয়ানডে আসর চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে দু’দলের চেহারাটা ভিন্ন। এখানে পাল্লা ভারি পাকিস্তানের। পরস্পর তিন সাক্ষাতে দুইবার জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে পাকিস্তান। রাজনৈতিক বৈরী সম্পর্ক নিয়ে  ২০০৭ সালের পর দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলতে দেখা যায়নি ক্রিকেটপাগল এ দুই দেশকে। যদিও ২০০৯-১০ মৌসুমে সীমিত ওভারের এক সিরিজ খেলতে ভারত সফরে যায় পাকিস্তান দল। পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক ও সফল অলরাউন্ডার ৭৩ বছর বয়সী আসিফ ইকবাল বলেন, এটা অ্যাশেজের মতো (ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দ্বৈরথ)। তবে ইতিহাস, পটভূমি, রাজনীতি দেখে আমার কাছে এটাকে (পাক-ভারত) তার (অ্যাশেজ) চেয়ে বড় মনে হয়। পাক-ভারত ম্যাচকে ঘিরে টানটান উত্তেজনা থাকে দু’দলের সমর্থকদের মাঝে। আর এ ম্যাচে আলাদা আবেগ ভর করে দু’দলের খেলেয়াড়দেরও। ভারতের সাবেক ওপেনিং ব্যাটসম্যান আকাশ চোপড়া বলেন, পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলার আগে ভারতের ক্রিকেটাররা এখন চাপ বোধ করে না। আর  দেশ হিসেবেও চিত্র বদলেছে। একটা সময় ছিল পাকিস্তানকে হারানোটা ছিল জীবন-মৃত্যুর প্রশ্ন. জাতি হিসেবে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব জাহির করা।
মুখোমুখি পরিসংখ্যানে পাল্লা ভারি পাকিস্তানের। ১২৭ ওয়ানডে সাক্ষাতে পাকিস্তানের রয়েছে ৭২টি জয়। দু’দলের পণ্ড হয় চারটি ম্যাচ। তবে সাম্প্রতিক মোকাবিলায় পাল্লা ভারি ভারতের। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে সর্বশেষ সাক্ষাতে পাকিস্তানকে বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে ১৬৫ রানে গুঁড়িয়ে দিয়ে আট উইকেটের জয় কুড়ায় ভারত।
২০১৩’র আসরে ওই লড়াইয়েরও ভেন্যু ছিল এজবাস্টন।
ক্রিকেটে এ দুই দলের লড়াই মানে ভারতের ব্যাটিং বনাম পাকিস্তানের বোলিং। বার্মিংহামে এবারের চিত্রটাও ব্যতিক্রম নয়। অধিনায়ক বিরাট কোহলির ভারতের শক্তিধর ব্যাটিং লাইনের বিপক্ষে পাকিস্তানের ভরসাটা মোহাম্মদ আমির, ওয়াহাব রিয়াজ, জুনাইদ খানদের পেস। পাকিস্তানের বিপক্ষে সর্বশেষ ম্যাচে ২০১৫ বিশ্বকাপে বল হাতে নিজের শুরুর ২.৪ ওভারে মোহাম্মাদ আমিরের ফিগার ছিল ৩/৮। ক্রিকেটের কুলীন আসর চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে শ্রীলঙ্কার সঙ্গে একবার যুগ্ম চ্যাম্পিয়নসহ (২০০২) ভারত শিরোপার স্বাদ নিয়েছে দুইবার। তবে আসরের ইতিহাসে ফাইনালের নজির নেই পাকিস্তানের। ২০০৯, ২০০৪ ও ২০০০’র আসরে সেমিফাইনালে পৌঁছে পাকিস্তান।
চাবিকাঠি
পাকিস্তানের বিপক্ষে ওয়ানডেতে ভারতের সাবেক অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির রানের গড় ৫৮.৩৮। এতে ধোনির রয়েছে দুটি সেঞ্চুরি ও ৯টি অর্ধশতক। আর ভারতের বর্তমান অধিনায়ক বিরাট কোহলি ক্যারিয়ার সেরা ১৮৩ রানের ইনিংসটি খেলেন পাকিস্তানেরই বিপক্ষে। সদ্য ভারতীয় প্রিমিয়ার লীগে (আইপিএল) অজি ব্যাটসম্যান ডেভিড ওয়ার্নারের পেছনে দ্বিতীয় সর্বাধিক রানের কৃতিত্বটা ভারতীয় ওপেনার শিখর ধাওয়ানের। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির মূল আসরে মাঠে নামার আগে দুই প্রস্তুতি ম্যাচে নিউজিল্যান্ড ও বাংলাদেশের বিপক্ষ যথাক্রমে ৪০ ও ৬১ রান করেন তিনি। কপিল দেবের পর ভারত দলে এমন ফাস্ট বোলিং অলরাউন্ডার দেকা যায়নি। বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে ৫৪ বলে ৮০ রান করেন হারদিক পান্ডিয়া। পাকিস্তানের ক্রিকেটে সর্বশেষ বড় আবিষ্কার বাবর আজম। গত বছর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টানা তিন ওয়ানডেতে সেঞ্চুরি হাঁকান ২২ বছর বয়সী এ ব্যাটসম্যান। ২৬ ম্যাচের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে তার রানের গড় ৫৫। ইতিমধ্যে তার রয়েছে পাঁচটি সেঞ্চুরি। আন্তর্জাতিক খেলায় এখনো অভিষেক হয়নি ফাহিম আশরাফের। তবে পাক-ভারত লড়াইয়ের আগে নজর রয়েছে ডানহাতি পেসার ফাহিমের দিকেও। বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে ৯ নম্বরে ব্যাট হাতে  ৩০ বলে ৬৪ রানের ম্যাচজয়ী ইনিংস খেলেন ফাহিম। এ নিয়ে টানা পঞ্চম চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেলছেন পাক অলরাউন্ডার শোয়েব মালিক। বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে ৭২ রান করেন শোয়েব। ২০১৫ বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাকিস্তানি পেসার ওয়াহাব রিয়াজের বিস্ফোরক স্পেলটির কথা মনে আছে ক্রিকেটপ্রেমীদের। ২০১১ বিশ্বকাপে পাঞ্জাবে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে পাঁচ উইকেটের কৃতিত্ব দেখান ওয়াহাব রিয়াজ। সেরা ফর্মে রয়েছেন ভারতের সুইং বোলার ভুবনেশ্বর কুমার। সর্বশেষ আইপিএলে সর্বাধিক ২৬ উইকেট নেয়া ভুবনেশ্বর প্রস্তুতি ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে নেন তিন শিকার।
মুখোমুখি পরিসংখ্যান
ম্যাচ     জয় (ভা)     জয় (পা)     পণ্ড
১২৭     ৫১     ৭২     ৪
নিরপেক্ষ ভেন্যু
ম্যাচ     জয় (ভা)     জয় (পা)     পণ্ড
৭০     ২৯     ৩৯     ২
চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি
ম্যাচ     জয় (ভা)     জয় (পা)     পণ্ড
৩     ১     ২     ০

পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ধরনের আরও সংবাদ
সাপ্তাহিক বকশীগঞ্জ
        Develop By CodeXive Software Inc.
themesba-lates1749691102